প্রায় বছর দুয়েক ধরে স্বাস্থ্য পাতায় পুরুষের সমস্যা নিয়ে ধারাবাহিকভাবে লিখে আসছি। লেখাটির উদ্দেশ্য ছিলো বাংলাদেশের হাজার হাজার তরুণ, যুবক এবং বিবাহিত পুরুষের মধ্যে শারীরিক সমস্যা নিয়ে নানা ভুল ধারণা নিরসন করা। আমার এই লেখাটি বিভ্রান্ত যুবসমাজের কতটা উপকারে এসেছে তা বলার জন্য আজকের এই লেখাটি নয়। গতমাসে প্যারিস গিয়েছিলাম ইউরোপিয়ান একাডেমী অব ডার্মাটোলজি কনফারেন্সে। আমার সঙ্গে ছিলেন বারডেম হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ রেজা বিন জায়েদ। সারা বিশ্ব থেকে প্রায় ১৫ হাজার চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ যোগ দেন বিশ্বের এই অন্যতম বৃহত্তম ডার্মাটোলজি কনফারেন্সে। চর্মরোগ, লেজার ও ত্বকের কসমেটিক চিকিৎসার ক্ষেত্রে বিশ্ব কতখানি অগ্রসর হয়েছে তা ইউরোপিয়ান কংগ্রেসে যোগদান না করলে বুঝা কঠিন। বিশ্বের অপর বৃহত্তম ডার্মাটোলজী কংগ্রেস হচ্ছে আমেরিকান একাডেমী অভ ডার্মাটোলজি কংগ্রেস। এ দুটো কংগ্রেস নিয়ে আমার লেখার কোন ইচ্ছা নেই। শুধু ইউরোপিয়ান একাডেমী অব ডার্মাটোলজির একটি বিষয় নিয়ে লিখতে চাই। আর এ বিষয়টি আমার লেখা পুরুষ সমস্যার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। প্যারিসে অনুষ্ঠিত ডার্মাটোলজি কংগ্রেস এর একটি পেইড টপিকস ছিলো এন্ড্রোলজি বা পুরুষের যৌন সমস্যা বা শারীরিক সমস্যা বিষয়ক। আমার এবং ডাঃ রেজা বিন জায়েদের খুব ইচ্ছা ছিলো এন্ড্রোলজির লেকচার শুনবো। প্যারিস ডার্মাটোলজি কনফারেন্সে এমনিতে ফিস দিয়েই রেজিস্ট্রেশন করতে হয়েছে। কিন্তু এন্ড্রোলজি লেকচারে যোগদান করতে হলে অতিরিক্ত ৩৫ ইউরো বা সাড়ে তিন হাজার টাকা দিতে হবে। এতেও আমাদের আপত্তি ছিলো না। কিন্তু এন্ড্রোলজি লেকচারে অংশ নিতে বিশেষজ্ঞদের এতই উৎসাহ ছিলো যে, কুপন ফুললি সোল্ড হয়ে যায়। অনেক চেষ্টা করে বিনা কুপনে হলে ঢুকে পড়ি। আমার খুব ইচ্ছা ছিল এন্ড্রোলজি সম্পর্কে জানবো। কারণ বাংলাদেশে পুরুষের সেক্স সমস্যা নিয়ে আমাকে অনেক ক্ষেত্রে পরামর্শ দিতে হয়। সম্ভবতঃ ডাঃ রেজা বিন জায়েদ আমার পথ অনুসরণ করতে পারেননি। যাহোক পুরো এক ঘণ্টার লেখচারে দেখানো হলো ইউরোপেও কিভাবে পুরুষের শারীরিক সমস্যা বাড়ছে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো সেক্স সমস্যার সমাধানে বিশেষজ্ঞ কখনও বললেন না কোন হারবাল মেডিসিনের কথা। শতকরা ২ থেকে ৫ ভাগ পুরুষের নানা কারণে শারীরিক সমস্যার কথা উল্লেখ করা হয়।

আমি দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের তরুণ ও যুব সমাজকে সচেতন করার জন্য যে ধরনের পরামর্শ দিয়ে আসছি মোটামুটি একই রকম তথ্য দেয়া হয় প্যারিস কনফারেন্সে। তবে পার্থক্য হচ্ছে বাংলাদেশের লাখ লাখ তরুণ নানা বিভ্রান্তির শিকার । আর ইউরোপে তরুণদের শারীরিক সমস্যা নিয়ে কোন বিভ্রান্তি নেই। তারা জানেন না এ ধরনের সমস্যার কথা। তবে প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষায় শতকরা সর্বোচ্চ ২ থেকে ৫ ভাগ অক্ষমতা থাকতে পারে। এ ধরনের সমস্যায় কখনও হারবাল চিকিৎসার কোন বৈজ্ঞানিক যৌক্তিকতা নেই। কিন্তু বাংলাদেশে একশ্রেণীর ওষুধ প্র‘তকারী প্রতিষ্ঠান তরুণ-যুবকদের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে হারবালের নামে নানা ক্ষতিকর উপাদানে তৈরী যৌন উত্তেজক ওষুধ উচ্চমূল্যে বিক্রয় হয়। আর তরুণ-যুবক এবং অনেক ক্ষেত্রে বিবাহিত পুরুষরাও এসব ক্ষতিকর ওষুধ সেবন করছে।

কোনভাবেই উপযুক্ত চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া কোন ধরনের যৌন উত্তেজক ওষুধ সেবন করা উচিত নয়। এতে শরীরের স্বাভাবিক ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যায়। প্যারিস কনফারেন্সে এন্ড্রোলজি লেকচারে যেসব কারণে পুরুষের শারীরিক সমস্যা হতে পারে তা তুলে ধরা হয়। যেমন ডায়াবেটিস, রক্তে চর্বি বা কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়া, দীর্ঘদিন মানসিক চিকিৎসার ওষুধ সেবন, ননস্টেরাডাল এন্টি ইনক্লামেটরী ড্রাগ সেবন, হরমোনের স্বল্পতা, কিছু কিছু হ্নদরোগ এবং প্রবল মানসিক চাপ অন্যতম। বিশেষজ্ঞরা এ ধরনের সমস্যার যথাযথ চিকিৎসা, মানসিক চাপমুক্ত থাকা এবং শারীরিক ফিটনেসের কথা বলেন। এছাড়া যাদের শতকরা ২ ভাগ ক্ষেত্রে প্রকৃত শারীরিক সমস্যা রয়েছে তাদের চিকিৎসার প্রয়োজনীতার কথা বলা হয়। এন্ড্রোলজির আরও কিছু তথ্য নিয়ে পরবর্তীতে লিখতে চাই। তবে যে কথাটি বলতে চাই তা হচ্ছে তরুণ-যুবক এবং বিবাহিত পুরুষদের কোনভাবেই অপ্রয়োজনীয় উত্তেজক ওষুধ সেবন করা উচিত নয়। পাশাপাশি কোন ধরনের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হওয়া উচিত নয়। আমি পূর্বেও বহুবার বলেছি বাংলাদেশের তরুণদের সমস্যার শতকরা ৯৫ ভাগ থেকে ৯৮ ভাগই মানসিক, শারীরিক সমস্যা নয়।

**************************
ডাঃ মোড়ল নজরুল ইসলাম
চুলপড়া, যৌন সমস্যা ও চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ এবং লেজার এন্ড কসমেটিক্স সার্জন বাংলাদেশ লেজার স্কিন সেন্টার, বাড়ী নং-২২/এ, রোড-২, ধানমন্ডি, ঢাকা
দৈনিক ইত্তেফাক, ১১ অক্টোবর ২০০৮