ব্যক্তিগত স্বাস্থ্য পরিচর্যা বলতে আমরা বুঝি, প্রতিদিন দুম্ববেলা অর্থাৎ সকালে ঘুম থেকে উঠে ও ঘুমোতে যাবার আগে দাঁত ব্রাশ করা, খাবার আগে ও পরে এবং প্রতিবার টয়লেট ব্যবহারের পরে ভালোভাবে হাত ধোঁয়া, প্রতি সপ্তাহে একবার নখ কাটা, প্রতিদিন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন কাপড় পড়া, পঁচা বাসি ও বাইরের খোলা খাবার ও পানীয় থেকে বিরত থাকা।

বিশুদ্ধ খাবার পানি পান করা ও সেনেটারী ল্যাট্রিন ব্যবহার করা। আর এই সাধারণ কাজগুলো যদি আমরা করতে পারি প্রতিনিয়ত তাহলে আমরা শুধু ডায়রিয়া না অন্যান্য অনেক রোগ-বালাই থেকে নিজেদের রক্ষা করতে পারবো।

আমাদের দেশে এক জরিপে দেখা গেছে বস্তিতে ৮৫% মহিলা এবং গ্রামে ৪১% মহিলা টয়লেট ব্যবহারের পর মাটিতে হাত ঘষে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলে। এই মহিলারাই যদি মাটিতে হাত না ঘষে সাবান ও পরিষ্কার পানিতে হাত ধুয়ে ফেলেন তাহলে তারা আরো অনেক বেশী কার্যকর সুরক্ষা পেতে পারেন।

ডাঃ ভেলেরী কিউটিস, ডাইরেক্টর, হাইজিন সেন্টার, লন্ডন স্কুল অব হাইজিন ও ট্রপিক্যাল মেডিসিন বলেছেন, মানুষের মলে থাকে বিলিয়নস অব বিলিয়নস ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া যা মানুষের প্রধান শত্রু ও বাচ্চাদের মৃত্যুর কারণ।

আর এর প্রতিকার একটাই তা হচ্ছে সাবান ও পানি দিয়ে ভালভাবে হাত ধোয়া।

কিন্তু এই সহজ কাজটি আমরা করি না। মানুষ অভ্যাসের দাস। আমরা ইচ্ছে করলেই এই সাধারণ অভ্যাসটা রপ্ত করতে পারি।

বাবা মা, ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, শিক্ষক, ইমাম, পুরোহিত, আমাদের সবার উচিত প্রত্যেকের কাছে এই তথ্যটি পৌঁছে দেয়া যে, সাবান ও পানি দিয়ে ভালভাবে হাত ধুলে বছরে দশ লক্ষ শিশুর ডায়রিয়াজনিত মৃত্যু রোধ করা সম্ভব।

আমাদের বাচ্চাদের হাত ধোয়ার অভ্যাসটি গড়ে তুলতে হবে আজ থেকে, এখন থেকেই।


************************************
লেখকঃ ডাঃ এম করিম খান
সহযোগী অধ্যাপক, শিশু বিভাগ
কমিউনিটি বেজ্‌ড মেডিকেল কলেজ, ময়মনসিংহ।
উৎসঃ দৈনিক ইত্তেফাক, ১১ নভেম্বর ২০০৭