বিশ্বের একনম্বর মরণব্যাধি হৃদরোগ। কোনোরকম পূর্বাভাস ছাড়াই যেকোনো সময় এটি কেড়ে নিতে পারে মানুষের জীবন। বিশ্বের মোট মৃত্যুর অর্ধেকই হয় হার্টের রোগ ও স্ট্রোকে।

প্রতিবছর লাখ লাখ লোকের হার্ট অ্যাটাক হচ্ছে। এদের মধ্যে ২৫ ভাগের মৃত্যু হয় হাসপাতালে পৌঁছার আগেই। হার্ট অ্যাটাক হলেও অনেক সময় বেঁচে থাকতে হয় নানা অক্ষমতা আর হঠাৎ মৃত্যুর ভয় নিয়ে।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে যে, আমেরিকায় গড়ে প্রতিদিন ২৬০০ লোক মারা যাচ্ছে হৃদরোগের শিকার হয়ে। সেখানে হৃদরোগীর সংখ্যা ষাট মিলিয়ন। হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের পর বহুসংখ্যক মানুষ প্রতিনিয়ত এই ব্যাধির সঙ্গে সংগ্রাম করে চলেছে। স্ট্রোকের ঝুঁকির ভেতর বসবাস করছে অগণিত মানুষ। পাশাপাশি জীবনযাপনে সতর্কতা ও প্রয়োজনীয় পরিবর্তন এনে বহু লোক মৃত্যু-ঝুঁকি কমিয়ে এনেছে।

হার্ট অ্যাটাককে ভূমিকম্প হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়। মানবদেহে এই ‘ভূমিকম্প’ আসতে অনেক বছর লেগে যেতে পারে, কিন্তু এই ভূমিকম্প হয় কোনো পূর্বাভাস না দিয়েই। পৃথিবীর ভূমিকম্প ঠেকানো যায় না, কিন্তু মানবদেহের ‘হৃদকম্প’ বা হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করা যায়। বাংলাদেশে ৩০ বছর বয়সের পর হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হচ্ছে এম লোকের সংখ্যা কম নয়। ৪০-৪৫ উর্ধ্ব ব্যক্তিদের হৃদরোগ তো অজানা নয়।

ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল ও রিসার্চ ইনস্টিটিউট সম্প্রতি জানিয়েছে বাংলাদেশে প্রতি ১০ জনে ১ জনের হার্টের সমস্যা আছে। এদের সমস্যা বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও জটিল হয়। তারা আরও জানায় বাংলাদেশে প্রতি বছর নতুন করে ১৫-২০ শতাংশ জনগোষ্ঠী উচ্চরক্তচাপে আক্রান্ত হচ্ছে। এদেশে স্বাস্থ্য সচেতনতার অভাব যতই থাকুক না কেন রোগভীতি ও এ থেকে মৃত্যুভয় কিন্তু কম নয়।

বাংলাদেশে হৃদরোগ বাড়ার কারণ

বর্তমানে আমাদের জীবন ধারার পশ্চিমা ধাঁচে পরিবর্তন হচ্ছে। ফাস্টফুডের সঙ্গে দ্রুততালে বাড়ছে ফ্যাট খাওয়ার প্রবণতা। কমেছে শাকসবজি ও ফলমূল খাওয়ার অভ্যাস ও টাটকা খাবার খাওয়ার ঝোঁক।

জীবনের গতি বাড়তে বাড়তে জেটগতির জীবনে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে একশ্রেণীর মানুষ। ফলে ইঁদুর দৌড়ের জীবনে বাড়ছে টেনশন, মানসিক চাপ-মন হয়ে পড়ছে ক্ষত-বিক্ষত, হৃদরোগ বেড়ে চলেছে এভাবে। অবিশ্বাস্যভাবে বেড়ে চলছে ধূমপান। এর বিপক্ষে সচেতনতা সৃষ্টি ও মোটিভেশনও যেন রুখতে পারছে না এর অগ্রযাত্রাকে। ধূমপান এখন আর শুধু বড়দের সঙ্গী নয়, ছোটদেরও বন্ধু। অতীতে বাঙালি ছিল কর্মমুখর, পরিশ্রম নির্ভরতায় চলছিল জীবন। জীবনযাপনের এ পদ্ধতি থেকে সরে এসেছে মানুষ। গ্রামের একশ্রেণীর মানুষ এখন মোটরসাইকেলে চড়েন বেশি, সাইকেলে চড়েন কম, হাঁটেন আরও কম। শহরাঞ্চলে লাফ দিয়ে বাড়ছে গাড়িচড়া, বসে বসে কাজ করা ও আয়েশী জীবনযাপনের মানসিকতা। কমছে শরীরের ব্যায়াম, বাড়ছে স্থূলতা। ব্যায়াম মানে তো হার্টরেট উঠছে ১৪০-এ আর ঘাম ঝরবে টপটপ করে।

প্রচলিত চিকিৎসা

রক্তনালীতে বস্নক ধরা পড়লে অ্যানজিওপ্লাস্টি বা করোনারি বাইপাস সার্জারি করা হয়। উভয় পদ্ধতি বেশ খরচসাপেক্ষ এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াযুক্ত। দেখা যায় কয়েক বছর পর জীবনীশক্তি অর্ধেকে নেমে আসে। যে হারে হৃদরোগের সংখ্যা বাড়ছে সে হারে বাড়ছে না নির্ভরযোগ্য অ্যানজিওপ্লাস্টি ও বাইপাস সার্জারির সেন্টারের সংখ্যা। এভাবে বাড়তে থাকলে আগামীতে হৃদরোগ চিকিৎসার হাসপাতাল ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ কয়েকগুণ বেশি প্রয়োজন হবে। যা রাতারাতি বাড়ানো সম্ভব নয়। তাই চিকিৎসার পাশাপাশি প্রয়োজন প্রতিরোধের ওপর গুরুত্ব দেয়া, তবে এ রোগীরা চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চললে ও নিয়মিত ওষুধ খেলে এর জটিলতা বহুলাংশে এড়ানো সম্ভব।

খাদ্যের মাধ্যমে কোলেস্টেরল ও চর্বি গ্রহণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হলে এটা একদিকে যেমন নতুন বস্নকেজ সৃষ্টি রোধ করবে, অন্যদিকে তেমনি ধমনীতে জমে থাকা মেদকেও অপসারণ করবে। চিন্তার বিষয় হলো হৃদরোগ চিকিৎসায় আধুনিক নিরাময় প্রযুক্তি, যেমন বাইপাস সার্জারি বা এনজিওপ্লাস্টি বিফলে যায় শুধুমাত্র নতুন নতুন বস্নকেজ সৃষ্টি এবং অপারেশনের পর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কারণেই।

বিজ্ঞান থেমে থাকেনি। হৃদযন্ত্রের ধমনীতে বস্নকেজ সৃষ্টি কারণ অনুসন্ধান করা হয়েছে। দেখা গেছে যে, বস্নকেজ সৃষ্টি যে কারণে হয় সেই সমস্যার সমাধান না করেই অস্ত্রোপচারের চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল। এই সূত্র ধরেই নতুন ধরনের চিকিৎসার পথ খোঁজা হতে থাকে। গবেষণা করেই হৃদরোগ চিকিৎসার ক্ষেত্রে এই সর্বসাম্প্রতিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত মুক্তির পথ মিলছে।

কী সেই মুক্তির পথ?

শুধু নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন আর কিছু নিয়ম অনুসরণ করলেই কঠিনতর হৃদরোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। এটাকেই বলা হচ্ছে করোনারি আর্টাজি ডিজিজ প্রিভেনশান অ্যান্ড রিগ্রেশান প্রোগ্রাম বা সংক্ষেপে ‘সিএডি পিআর’। কোনো ওষুধ গ্রহণ ছাড়াই কেবল খাদ্যাভ্যাস ও জীবনাচারণে পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণ এনে হৃদরোগ সম্পূর্ণভাবে প্রতিরোধ এবং নিরাময় করা সম্ভব।

চিকিৎসা যখন ওষুধ ও অস্ত্রোপচার ছাড়া

১৯৮৮ সালে ডা• অরনিসের অবদানের কথা বিশ্ববাসী জানতে পারেন, তিনি করোনারি আর্টারি রোগে আক্রান্ত কিন্তু বাইপাস সার্জারি করতে রাজি হচ্ছেন না এমন রোগীদের দু’টি দ্রুপে ভাগ করেন- প্রথম গ্রম্নপের রোগীদের চিকিৎসা শুরু করেন কম ফ্যাট ও বেশি আঁশযুক্ত খাবার দিয়ে, এছাড়া স্ট্রেসমুক্ত থাকার পদ্ধতি, প্রাণায়াম-যোগব্যায়াম ও মেডিটেশন করার উপদেশ ও দীক্ষা দেন। অপর গ্রম্নপকে দেয়া হল হৃদরোগে সচরাচর ব্যবহৃত ওষুধ।

এ দুই গ্রম্নপের রোগীদেরই বিশেষ তত্ত্বাবধানে রাখা হল। কিছুদিন পর পর রোগীর অগ্রগতি পরীক্ষা-নীরিক্ষা করা হল। পাওয়া গেল অদ্ভুত ফল। ডা• অরনিসের আবিস্কৃত পদ্ধতি যারা অনুসরণ করেছেন তাদের ধমনীতে জমে থাকা চর্বি বা কোলেস্টেরল পরিষ্কার হয়ে চক্তচলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে তারা ভীতিকর বুকব্যথা থেকে মুক্তি পান এবং হার্ট অ্যাটাকের আশংকা কমে আসে।

অপরদিকে দ্বিতীয় দলের রোগীদের অবস্থা আগের অবস্থায় থেকে গেল অর্থাৎ অবস্থার কোনো উন্নতি হল না। কারও কারও ক্ষেত্রে অবস্থার অবনতি হল।

ভারতের গবেষণা

ভারতের খ্যাতনামা হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরাও এই পদ্ধতি অনুসরণ করে অধিকাংশ ক্ষেত্রে অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছেন।

বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা

৩৮ বছরের এক বাংলাদেশী। গত ৩ মাস আগে করা অ্যানজিওগ্রামে তার লেফট এন্টেরিয়র ডিসেন্ডিং আর্টারিতে ৮৫-৯০% বস্নক ধরা পড়ে। ডাক্তাররা তাকে তাৎক্ষণিক অ্যানজিওপ্লাস্টি করার পরামর্শ দেন। কিন্তু টাকার অভাবে তিনি তা করতে পারেননি। তাকে প্রাণায়াম ও মেডিটেশন পদ্ধতি চালিয়ে যেতে বলা হলে বিগত আড়াই-তিন মাস থেকে এখন আগের চেয়ে অনেক ভাল আছেন। যেখানে তার আগে আধা মাইল হাঁটতে কষ্ট হতো, এখন তিনি কষ্ট ছাড়াই দুই-তিন মাইল পর্যন্ত হাঁটতে পারেন। তিনি এরই মধ্যে ভারতের এক হৃদরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখিয়ে এসেছেন। তিনি পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর তার বর্তমান অবস্থা দেখে তাকে আগের পদ্ধতিগুলো মেনে চলার পরামর্শ দেন এবং আপাততঃ অ্যানজিওপ্লাস্টি করার প্রয়োজন নেই বলে মত দেন।

**************************
ডাঃ গোবিন্দ চন্দ্র দাস
লেখকঃ সিনিয়র কনসালটেন্ট
শহীদ সোহরাওয়ারর্দী হাসপাতাল, ঢাকা
করোনারি আর্টারি ডিজিস প্রিভেনশন
এন রিগ্রেশান (সিএডি পিআর) সেন্টার
৫৭/১৫ পশ্চিম পান্থপথ, ঢাকা। ফোনঃ ৮১১২৮২৫
দৈনিক ইত্তেফাক, ১৮ এপ্রিল ২০০৯।