স্বাস্থ্যকথা - http://health.amardesh.com
আনডিসেনডেড টেসটিস: সার্জিক্যাল সমস্যা
http://health.amardesh.com/articles/1555/1/aaaaaaaaaa-aaaaaa-aaaaaaaaaaa-aaaaaa/Page1.html
Health Info
 
By Health Info
Published on 04/25/2009
 
টেসটিস বা অণ্ডকোষ পুরুষ হরমোন ও শুক্রাণু তৈরির জন্য দায়ী। পুরুষ ভ্রূণের বৃদ্ধির সময় পেটের মধ্যে এই অণ্ডকোষ বড় হতে থাকে এবং গর্ভাবস্থা প্রক্রিয়ার মধ্যে অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে আসে। সাধারণ গর্ভাবস্থার সাত থেকে নয় মাসের সময় অণ্ডকোষদ্বয় অণ্ডথলিতে নেমে আসে।

আনডিসেনডেড টেসটিস: সার্জিক্যাল সমস্যা

টেসটিস বা অণ্ডকোষ পুরুষ হরমোন ও শুক্রাণু তৈরির জন্য দায়ী। পুরুষ ভ্রূণের বৃদ্ধির সময় পেটের মধ্যে এই অণ্ডকোষ বড় হতে থাকে এবং গর্ভাবস্থা প্রক্রিয়ার মধ্যে অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে আসে। সাধারণ গর্ভাবস্থার সাত থেকে নয় মাসের সময় অণ্ডকোষদ্বয় অণ্ডথলিতে নেমে আসে।

অণ্ডকোষদ্বয় যদি প্রাকৃতিকভাবে অণ্ডথলিতে পুরোপুরি নেমে না আসে অর্থাৎ একটি বা দু’টি অণ্ডকোষই অণ্ডথলিতে নেমে আসতে ব্যর্থ হয়­ সে অবস্থাকে বলে আনডিসেনডেড টেসটিস। সহজ বাংলায় আনডিসেনডেড টেসটিস হলো অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে না আসা।

এটি আপনাআপনিই ঘটে। যদি নিজ থেকে ঠিক না হয় তাহলে সার্জারি বা শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে অণ্ডকোষ ঠিকমতো অবস্থানে অণ্ডথলিতে স্থাপন করা হয়। এ চিকিৎসা সম্পন্ন করা হয় সাধারণত শিশুর এক থেকে দুই বছরের মধ্যে। অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নামানোর জন্য আরেকটি চিকিৎসা ব্যবস্থা হলো হরমোন থেরাপি।
আনডিসেনডেড টেসটিস ঠিকমতো চিকিৎসা করা না হলে ভবিষ্যতে বন্ধ্যত্ব সমস্যা ঘটতে পারে, যেমন শুক্রাণুর উৎপাদন কমে যায়। যেসব পুরুষের আনডিসেনডেড টেসটিস রয়েছে, শল্যচিকিৎসার মাধ্যমে ঠিক করা হয়েছে কিংবা ঠিক করা হয়নি­ তাদের অণ্ডকোষে ক্যান্সার হওয়ার অনেক ঝুঁকি থাকে।

যেসব পুরুষ শিশু নির্দিষ্ট সময়ের আগেই জন্ম নেয় অর্থাৎ যাদের বলে প্রিম্যাচিউর বা অকালপক্ক শিশু, আনডিসেনডেড টেসটিস তাদের মধ্যে বেশি দেখা যায়। এ হার ৩০ শতাংশ। নির্দিষ্ট সময়ে জন্মগ্রহণকারী শিশুদের ক্ষেত্রে এ হার তিন থেকে পাঁচ শতাংশ।

উপসর্গ
যদি আপনার ছেলের আনডিসেনডেড টেসটিস থাকে, তাহলে আপনি দেখবেন, তার একটি বা দু’টি অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে পুরোপুরি নেমে আসেনি। এর অর্থ হলো অণ্ডকোষ এখনো পেটের মধ্যে থেকে গেছে অথবা ইনগুইনাল ক্যানাল বা কুঁচকিতে রয়েছে। খুব অল্প ক্ষেত্রে অণ্ডকোষ গঠিত নাও হতে পারে। যদি দু’টি অণ্ডকোষই সম্পূর্ণ আনডিসেনডেড হয়, তাহলে শিশুর লিঙ্গ নিরূপণ করার জন্য ক্রোমোজম পরীক্ষার প্রয়োজন হয়।

অণ্ডথলির যে পাশে অণ্ডকোষ নেমে আসেনি, সে পাশের অণ্ডথলি ছোট ও ফোলানো দেখা যেতে পারে।

অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে না আসার কারণ
ভ্রূণের ক্ষেত্রে অণ্ডকোষদ্বয় পেটের মধ্যে বড় হতে শুরু করে, তার পর স্বাভাবিকভাবে তারা ইনগুইনাল ক্যানাল বা কুঁচকিপথের মাধ্যমে অণ্ডথলিতে নেমে আসে।
এই নেমে আসার প্রক্রিয়ায় কোনো কিছু বিরূপ প্রভাব ফেললে ফলস্বরূপ আনডিসেনডেড টেসটিস ঘটে, যদিও এর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি। সম্ভাব্য কারণের মধ্যে রয়েছে­ গর্ভাবস্থায় হরমোনজনিত অস্বাভাবিকতা কিংবা অস্বাভাবিক অণ্ডকোষের উৎপত্তি।

গর্ভাবস্থায় অণ্ডকোষে প্যাঁচ খেলে আনডিসেনডেড টেসটিস হতে পারে। কখনো কখনো অণ্ডকোষ বৃদ্ধি নাও পেতে পারে।

অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে না আসার ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলো
নিচের বিষয়গুলো আনডিসেনডেড টেসটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারেঃ
মায়ের যদি নবজাতকের মৃত্যুর অথবা অস্বাভাবিক যৌনাঙ্গের পারিবারিক ইতিহাস থাকে।
যদি গর্ভাবস্থাকালে ভ্রূণের হরমোনের মাত্রা বেড়ে যায় বা কমে যায়।
যদি ভ্রূণের ডাউন সিনড্রোম থাকে।
যদি ভ্রূণের এন্ডোক্রাইন ব্যবস্থায় কোনো সমস্যা থাকে।
যদি মায়ের বয়স ২০ বছরের কম হয় কিংবা ৩৫ বছরের বেশি হয়।
যদি মা কীটনাশক বা অন্য বিষাক্ত পদার্থের সংস্পর্শে আসে।
যদি মায়ের স্বাস্থ্য দুর্বল থাকে।

কখন চিকিৎসকের শরণাপন্ন হবেন
অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নেমে এসেছে কি না তা জন্মের ঠিক পরপরই নিরূপণ করা হয়। যাহোক, যদি দেখেন যে আপনার নবজাতক সন্তানের অণ্ডকোষ অণ্ডথলিতে নামেনি, তাহলে চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন। দ্রুত রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসা শিশুকে পরবর্তী জীবনে বন্ধ্যত্ব সমস্যা বা অণ্ডকোষের ক্যান্সার হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারেন।

**************************
ডাঃ মিজানুর রহমান কল্লোল
লেখকঃ জেনারেল ও ল্যাপারোস্কপিক সার্জন
চেম্বারঃ কমপ্যাথ লিমিটেড, ১৩৬ এলিফ্যান্ট রোড (বাটা সিগনাল ও হাতিরপুল বাজারের সংযোগ সড়কের মাঝামাঝি), ঢাকা।
দৈনিক নয়া দিগন্ত, ১৯ এপ্রিল ২০০৯।