শীত এসেছে, শরীরের অন্যান্য অংশের তুলনায় অত্যন্ত সংবেদনশীল অংশ ঠোঁট। তাই আগে থেকে যত্নে রাখতে হবে এই অংশটিকে। এই সময়ে বাতাসে আর্দ্রতা কমে গিয়ে ঠোঁট ফেটে যায় বলে অতিরিক্ত যত্ন নিতে হয় এ সময়।

জেনে নিন কেমন হবে শীতে ঠোঁটের যত্ন-

প্রতিদিন রাতে শোবার আগে ঠোঁটের লিপস্টিক খুব ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। পুরো মুভালো করে ধুয়ে গ্লিসারিন ও গোলাপজল মিশিয়ে লাগাতে হবে। এতে ঠোঁটের শুষ্কতা দূর হয়ে ঠোঁট সরস ও মসৃণ হয়ে উঠবে।
এক চামচ দুধে ৫ ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়ে একদিন পরপর ঠোঁটে লাগালে ঠোঁট নরম থাকে।

লিপস্টিক হিসেবে গ্লসি লিপস্টিক ব্যবহার করা উচিত। এখন মার্কেটে ন্যাচারাল রঙের গ্লসি লিপস্টিক পাওয়া যায়। এটা সব সময়ের জন্য ব্যবহার করা যায়।

ঠোঁট ফেটে গেলে আউটলাইন করে ভেতরে গ্লসি লিপস্টিক দিতে হবে। লাইনার দিলে ঠোঁটের ফাটা অংশ ঠোঁটের বাইরের অংশে সংক্রমিত হবে না।
ঠোঁট ফেটে মরা চামড়া উঠলে সেটা হাত দিয়ে টেনে তুলবেন না। ঠোঁট শুকিয়ে গেলে বারবার জিভ দিয়ে ঠোঁট ভেজাবেন না। বরং ঠোঁটে একটু বেশি করে ভ্যাসলিন লাগিয়ে রাখুন। নরম হলে টিস্যু দিয়ে হালকাভাবে ঘমেরা চামড়া তুলে ফেলুন। এরপর অল্প ভ্যাসলিন লাগিয়ে রাখুন।

কখনও কখনও ঠোঁট ফেটে রক্তও বের হতে পারে। এতে ঠোঁটে ব্যথাও হয়। এসময়ে ঠোঁটে লিপস্টিক না লাগিয়ে বরং গোলাপজলে গ্লিসারিন মিশিয়ে বারবার ঠোঁটে লাগান। এতেও না সারলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

ঠোঁটের কালচে ছাপ তুলতে শীতের সময়ে শুধু যে ঠোঁট ফাটে তাই না। ঠোঁটে আরও কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে। যেমন- এ সময়ে কারও কারও ঠোঁটে কালছে ছাপ পড়তে দেখা যায়। এতে খুব বেশি ভয় না পেয়ে নিয়মিত পরিচর্যা করলে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এবার জেনে নিন ঠোঁটে কালচে ছাপ দূর করার কয়েকটি টিপস্‌-

প্রতিদিন বাইরে থেকে ফিরে ঠোঁটটাকে ভালভাবে পরিষ্কার করতে হবে। কারণ ঠোঁটে দীর্ঘসময় লিপস্টিক লেগে থাকলে কালছে ছাপ পড়তে পারে।
গ্লিসারিন ও গোলাপজল মিশিয়ে তুলার সাহায্যে ঠোঁটে লাগাতে হবে। ৫ মিনিট ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে আঙুল দিয়ে ম্যাসাজ করে লাগাতে হবে।
শসার রস সঙ্গে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে লাগালেও খুব তাড়াতাড়ি কালচে ছোপ চলে যায়।

ঠোঁটে রোজ দুধের সঙ্গে গোলাপের পাপড়ি বেটে দিলেও ঠোঁটের মসৃণতা বেড়ে যায়।

ঠোঁটে লিপস্টিক সবসময় ভালো ব্র্যান্ডের ব্যবহার করা উচিত। নকল কিংবা নিম্নমানের লিপস্টিক ঠোঁটে লাগালে ঠোঁটের চামড়ার ক্ষতি হয়।
ঠোঁট পরিষ্কার করতে হয় আলতোভাবে। খুব জোরে ঘষলে ঠোঁটের চামড়ার ক্ষতি হয়। এতেও ঠোঁটে কালো দাগ পড়তে পারে।