লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ হলে চিকিৎসা পরিভাষায় তাকে বলে ব্যালানাইটিস। গ্রিক শব্দ ব্যালানস থেকে এটা এসেছে। ব্যালানস শব্দের অর্থ লিঙ্গ মুন্ডু বা লিঙ্গের মাথা। লিঙ্গাগ্রের চামড়া আক্রান্ত হলে তাকে বলে ব্যালানোপসথাইটিস। লিঙ্গমুন্ডুর চারপাশে এক ধরনের ময়লা জমা ও নিঃসরণের কারণে জায়গাটা বাতাসের সংস্পর্শ কম পায় এবং সেখানে চুলকানি ও জ্বালাপোড়া হয়; এ কারণে লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ হয় ও লিঙ্গমুন্ডু ফুলে যায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা গেছে, যাদের খতনা করা হয়নি, তারাই এ সমস্যায় বেশি ভোগেন।

রোগের কারণ

বিভিন্ন কারণে লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ হতে পারে। এসব কারণের মধ্যে রয়েছে পরিপার্শ্বিক উপাদান, আঘাত এবং বিভিন্ন ধরনের জীবাণু দ্বারা সংক্রমণ যেমন ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস কিংবা ফাঙ্গাস। এর প্রত্যেকটির জন্য আলাদা আলাদা চিকিৎসার প্রয়োজন হয়।

চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, খতনা করা হয়নি এমন ছেলেদের মধ্যে এ রোগের প্রকোশ বেশি। খতনা করা হয়নি এমন যে কোনো বয়সী পুরুষের যে কোনো সময় লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ হতে পারে। যেসব পুরুষের লিঙ্গাগ্রের চামড়া টাইট বা আঁটোসাঁটো থাকে অর্থাৎ চামড়া পেছনের দিকে টেনে নামানো কষ্টকর অথবা যেসব পুরুষ লিঙ্গ ঠিক মতো পরিষ্কার করেন না তারা ব্যালানাইটিস বা লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ রোগে আক্রান্ত হন। তবে খতনা করানো হয়েছে এমন ছেলেও এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে ডায়াবেটিসের কারণেও লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহ হয়, বিশেষ করে যদি রক্তে চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ না থাকে।

লিঙ্গের পরিচ্ছন্নতা

অনেকেই লিঙ্গের পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে উদাসীন থাকেন। বিশেষ করে ছোট ছেলেরা এ ব্যাপারে সচেতন নয়। বহু গবেষণায় দেখা গেছে, লিঙ্গমুন্ডুতে প্রদাহের সাথে লিঙ্গের পরিচ্ছন্নতার সম্পর্ক রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব পুরুষ সম্পূর্ণ লিঙ্গ ধৌত করেন না এবং যেসব পুরুষ খতনা করাননি তারা সচরাচর ব্যালানাইটিসে আক্রান্ত হন। আবার সাবান দিয়ে লিঙ্গ অতিরিক্ত পরিষ্কার করলেও ব্যালানাইটিস হয়।

রোগ নির্ণয়

রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রে সতর্কতার সাথে রোগীর সম্পূর্ণ ইতিহাস জানতে হবে। লিঙ্গমুন্ডু থেকে রস নিঃসরণ হলে তার কালচার পরীক্ষা করাতে হবে এবং ক্ষেত্র বিশেষে বায়োপসি করাতে হবে।

জটিলতা

ব্যালানাইটিসের কারণে লিঙ্গমুন্ডু ফুলে যেতে পারে। এর ফলে যাদের খতনা করা হয়নি তাদের লিঙ্গাগ্রের ত্বক টেনে নিচে নামানো অসাধ্য হয়ে পড়ে। জায়গাটিতে মারাত্মক ইনফেকশন দেখা দেয়। লিঙ্গমুন্ডুর ত্বক লাল হয়ে যায় ও ফুলে যায়।


**************************
ডাঃ মিজানুর রহমান কল্লোল
লেখকঃ জেনারেল ও ল্যাপারোস্কপিক সার্জন। চেম্বারঃ কমপ্যাথ লিমিটেড, ১৩৬ এলিফ্যান্ট রোড (বাটা সিগনাল ও হাতিরপুল বাজারের সংযোগ সড়কের মাঝামাঝি), ঢাকা।
দৈনিক ইত্তেফাক, ৭ নভেম্বর ২০০৯।