গ্যাষ্ট্রিক বা আলসার নামটির সঙ্গে পরিচিত নন এমন লোক খুঁজে বের করা হয়ত খুব কঠিন হবে। সাধারণত লোকজন গ্যাষ্ট্রিক বা আলসার বলতে যা বুঝিয়ে থাকেন আমরা চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলি পেপটিক আলসার।


পেপটিক আলসার যে শুধু পাকস্হলীতেই হয়ে থাকে, তা কিন্তু নয় বরং এটি পৌষ্টিকতন্ত্রের যে কোনো অংশেই হতে পারে। সাধারণত পৌষ্টিকতন্ত্রের যে যে অংশে পেপটিক আলসার দেখা যায় সেগুলো হচ্ছে-

১. অন্ননালীর নিচের প্রান্ত

২. পাকস্হলী

৩. ডিওডেনামের বা ক্ষুদ্রান্ত্রের প্রথম অংশ এবং

৪. পৌষ্টিকতন্ত্রের অপারেশনের পর যে অংশে জোড়া লাগানো হয় সে অংশে। পশ্চিমা দেশগুলোর তুলনায় উন্নয়নশীল দেশ তথা আমাদের এ উপমহাদেশে এ রোগীর সংখ্যা খুবই বেশি। ধনীদের চেয়ে গরিব লোকের মধ্যে এ রোগ বেশি দেখা দেয়। তবে নারী-পুরুষ প্রায় সমানভাবে এ রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

যেসব কারণে পেপটিক আলসার হতে পারে-
বংশগতঃ কারো নিকটতম আত্মীয়স্বজন যেমনঃ মা, বাবা, চাচা, মামা, খালা ও ফুফু যদি এ রোগে ভুগে থাকেন তবে তাদের পেপটিক আলসার হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। যাদের রক্তের গ্রুপ ‘ও’ তাদের মধ্যে এ রোগের প্রবণতা বেশি।


রোগ-জীবাণুঃ হেলিকো বেক্টার পাইলোরি নামক একপ্রকার অণুজীব এ রোগের জন্য বহুলাংশে দায়ী।

ওষুধঃ যেসব ওষুধ সেবনে পেপটিক আলসার হতে পারে তার মধ্যে ব্যথানাশক ওষুধ বা ঘ ঝঅওউঝ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

ধুমপানঃ ধুমপায়ীদের মধ্যে এ রোগের প্রবণতা বেশি।


এছাড়াও কারো পৌষ্টিকতন্ত্র থেকে যদি বেশি পরিমাণে এসিড এবং প্রোটিন পরিপাককারী এক ধরনের এনজাইম যা পেপসিন নামে পরিচিত তা নিঃসৃত হতে থাকে এবং জন্মগতভাবেই পৌষ্টিকতন্ত্রের গঠনগত কাঠামো দুর্বল থাকে তাহলেও পেপটিক আলসার হতে পারে।


তবে সাধারণত যে কথাটা প্রচলিত ভাজা-পোড়া কিংবা ঝালজাতীয় খাবার খেলে পেপটিক আলসার হয় এর কোনো সুনির্দিষ্ট প্রমাণ চিকিৎসা বিজ্ঞানে মেলেনি। তবে যারা নিয়মিত আহার গ্রহণ করেন না কিংবা দীর্ঘ সময় উপোষ থাকেন তাদের মধ্যে পেপটিক আলসার দেখা দিতে পারে।
উপসর্গগুলো


পেটে ব্যথাঃ সাধারণত পেটের উপরিভাগের মাঝখানে বক্ষ পিঞ্জরের ঠিক নিচে পেপটিক আলসারের ব্যথা অনুভব হয়। তবে কখনো কখনো ব্যথাটা পেছনের দিকেও যেতে পারে।

ক্ষুধার্ত থাকলে ব্যথাঃ এ জাতীয় রোগী ক্ষুধার্ত হলেই প্রচন্ড ব্যথা অনুভব করে এবং খাবার খেলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যথা কমে যায়।

রাতে ব্যথাঃ অনেক সময় রাতের বেলা পেটে ব্যথার কারণে রোগী ঘুম থেকে জেগে ওঠে কিছু খেলে ব্যথা কমে যায় এবং রোগী আবার ঘুমিয়ে পড়ে।
মাঝে মধ্যে ব্যথাঃ পেপটিক আলসারের ব্যথা সাধারণত সব সময় থাকে না, একাধারে ব্যথাটা কয়েক সপ্তাহ চলতে থাকে, তারপর রোগী সম্পুর্ণরুপে ভালো হয়ে যায়। এ অবস্হা কয়েক মাস থাকে তারপর আবার কয়েক সপ্তাহ ধরে ঠিক আগের মতো ব্যথা অনুভব হয়।

ব্যথা কমেঃ পেপটিক আলসার ব্যথা সাধারণত দুধ, এন্টাসিড খাবার খেলে কিংবা বমি করলে অথবা ঢেকুর তুললে ব্যথা কমে।
এছাড়াও পেপটিক আলসারের রোগীদের মধ্যে বুকজ্বালা, অরুচি, বমি বমি ভাব, ক্ষুধা মন্দা কিংবা হঠাৎ করে রক্ত বমি অথবা পেটে প্রচন্ড ব্যথা অনুভব হতে পারে।


চিকিৎসা

শৃংখলাঃ পেপটিক আলসারে আক্রান্ত রোগীদের অবশ্যই ধুমপান বন্ধ করতে হবে। ব্যথানাশক ওষুধ অর্থাৎ এসপ্রিনজাতীয় ওষুধ সেবন থেকে যথাসম্ভব বিরত থাকতে হবে এবং নিয়মিত খাবার গ্রহণ করতে হবে।

ওষুধঃ পেপটিক আলসারের রোগীরা সাধারণত এন্টাসিড, রেনিটিডিন, ফেমোটিডিন, ওমিপ্রাজল, লেনসো প্রাজল, পেনটো প্রাজল জাতীয় ওষুধ সেবনে উপকৃত হন।

কারণভিত্তিক চিকিৎসাঃ জীবাণুজনিত কারণে যদি এ রোগ হয়ে থাকে তবে বিভিন্ন ওষুধের সমন্বয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়, যা ট্রিপল থেকে থেরাপি নামে পরিচিত।

অপারেশনঃ পেপটিক আলসারের ক্ষেত্রে অপারেশন সাধারণত জরুরি নয়। তবে দীর্ঘমেয়াদি ওষুধ সেবনের পরও যদি রোগী ভালো না হন, কিছু খেলে যদি বমি হয়ে যায় অর্থাৎ পৌষ্টিক নালীর কোনো অংশ যদি সরু হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে অপারেশন করে রোগী উপকৃত হতে পারেন।

সময়মত পেপটিক আলসারের চিকিৎসা না করলে রোগীর নিম্নলিখিত সমস্যাগুলো দেখা দিতে পারে। যেমনঃ

১. পাকস্হলী ফুটা হয়ে যেতে পারে

২. রক্ত বমি হতে পারে

৩. কালো পায়খানা হতে পারে

৪. রক্ত শুন্যতা হতে পারে

৫. ক্যাসার হতে পারে (কদাচিৎ) এবং

৬. পৌষ্টিক নালীর পথ সরু হয়ে যেতে পারে এবং রোগীর বার বার বমি হতে পারে।

কাজেই যারা দীর্ঘমেয়াদি পেপটিক আলসারে ভুগছেন তাদের উচিত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া। পেপটিক আলসারজনিত জটিলতা আগে থেকেই শনাক্ত করা এবং সে অনুযায়ী চিকিৎসা নেয়া, প্রয়োজনে অপারেশনের মাধ্যমে চিকিৎসা নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা ধরে না রেখে সুস্হ-সুন্দর স্বাভাবিক জীবনযাপন করা।


**************************
লেখকঃ অধ্যাপক ডা. এ কে এম ফজলুল হক
চেয়ারম্যানঃ কলোরেকটাল সার্জারি বিভাগ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।
দৈনিক আমারদেশ, ২৪ ডিসেম্বর ২০০৭