স্বাস্থ্যকথা - http://health.amardesh.com
অতিরিক্ত চিনি হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়
http://health.amardesh.com/articles/2319/1/aaaaaaaa-aaaa-aaaaaaaa-aaaaa-aaaaa/Page1.html
Health Info
 
By Health Info
Published on 05/7/2010
 
অতিরিক্ত চিনি শুধু মানুষের শরীরকে মুটিয়েই দেয় না, এর ফলে মানুষের হৃদরোগের ঝুঁকিটাও বেড়ে যায় বহুগুণে। অতিরিক্ত চিনি খেলে মুটিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে আরও বেশ কিছু রোগের উপসর্গ দেখা দিতে পারে শরীরে। এর মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিটাই থাকে সবচেয়ে বেশি। মিষ্টি কোমল পানীয়তেও চিনি থাকে, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। ডায়াবেটিস রোগের জন্যও কিন্তু অনেকাংশেই দায়ী এই অতিরিক্ত মিষ্টি। আমেরিকার একদল গবেষক মানব শরীরে চিনির প্রভাব নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করে সম্প্রতি এমনই তথ্য প্রকাশ করেছে। গবেষণায় বলা হয়, বিশেষ করে মহিলাদের দিনে চিনিযুক্ত খাবার ১০০ ক্যালোরি অথবা ছয় চা চমচের বেশি চিনি খাওয়া উচিত নয়। পুরুষের বেলায় এই পরিমাণটা ১৫০ ক্যালোরি বা নয় চা চামচ। এই অতিরিক্ত চিনি হৃদযন্ত্রের রোগ তৈরিসহ উচ্চ রক্তচাপ এমনকি স্ট্রোকও ঘটাতে পারে।

অতিরিক্ত চিনি হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়

অতিরিক্ত চিনি শুধু মানুষের শরীরকে মুটিয়েই দেয় না, এর ফলে মানুষের হৃদরোগের ঝুঁকিটাও বেড়ে যায় বহুগুণে। অতিরিক্ত চিনি খেলে মুটিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে আরও বেশ কিছু রোগের উপসর্গ দেখা দিতে পারে শরীরে। এর মধ্যে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিটাই থাকে সবচেয়ে বেশি। মিষ্টি কোমল পানীয়তেও চিনি থাকে, যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। ডায়াবেটিস রোগের জন্যও কিন্তু অনেকাংশেই দায়ী এই অতিরিক্ত মিষ্টি। আমেরিকার একদল গবেষক মানব শরীরে চিনির প্রভাব নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করে সম্প্রতি এমনই তথ্য প্রকাশ করেছে। গবেষণায় বলা হয়, বিশেষ করে মহিলাদের দিনে চিনিযুক্ত খাবার ১০০ ক্যালোরি অথবা ছয় চা চমচের বেশি চিনি খাওয়া উচিত নয়। পুরুষের বেলায় এই পরিমাণটা ১৫০ ক্যালোরি বা নয় চা চামচ। এই অতিরিক্ত চিনি হৃদযন্ত্রের রোগ তৈরিসহ উচ্চ রক্তচাপ এমনকি স্ট্রোকও ঘটাতে পারে। অতিরিক্ত চর্বিযুক্ত খাবার খেলে শরীরে যেমন ট্রাইগ্লিসারাইড এবং কোলেস্টরেলের মাত্রা বেড়ে যায়, ঠিক তেমনি অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবারও শরীরে একই রকম প্রভাব ফেলে। আর শরীরের এই অনাকাঙ্ক্ষিত প্রভাব এড়াতে প্রয়োজন একটু বাড়তি সচেতনতা। এই সচেতনতা আর পরিমিত খাবার গ্রহণের মাধ্যমেই আপনি আপনার শরীরকে রাখতে পারেন রোগ ও ঝামেলা মুক্ত।

*************************
সিদ্ধার্থ মজুমদার
সূত্র: রয়টার্স ।
দৈনিক প্রথম আলো, ২৮ এপ্রিল ২০১০।