কোলেস্টেরল বা রক্তে চর্বি নিয়ে ভাবেন না এমন লোক সম্ভবত কমই পাওয়া যায়। তবে বেশীরভাগ ক্ষেত্রে কোলেস্টেরল সম্পর্কে আমাদের ধারণা খুবই কম। কোলেস্টেরল বলতে টোটাল কোলেস্টেরল, এইচডিএল (হাই ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) বা ভালো কোলেস্টেরল এলডিএর (লো ডেনসিটি লাইপোপ্রোটিন) বা মন্দ কোলেস্টেরল এবং টিজি (ট্রাইগিস্নসারাইড) বুঝায়। সাধারণতঃ কম চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়া, মিষ্টি ও দুগ্ধজাত খাবার পরিহার অথবা কম খাওয়া, নিয়মিত ব্যয়াম করলে সার্বিকভাবে রক্তের কোলেস্টেরল কমানো যায়। ভালো কোলেস্টেরল এইচডিএল হার্টের রক্তনালীতে চর্বি জমতে বাধা দেয় এবং হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। অন্যদিকে এলডিএল বা মন্দ কোলেস্টেরল হার্টের রক্তনালীতে জমে হার্টে ব্লক সৃষ্টি করে। ফলশ্রুতিতে হার্ট এ্যাটাক হবার ঝুঁকি বাড়ে। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় ভালো কোলেস্টেরল রক্তে নির্ধারিত মাত্রার চেয়ে কম থাকে। এই অতি প্রয়োজনীয় কোলেস্টেরল বাড়ানোর তেমন কোন ওষুধ নেই। তবে নিয়মিত ব্যায়াম করলে রক্তের ভালো কোলেস্টেরল যেমন বাড়ে তেমনি মন্দ বা ক্ষতিকর কোলেষ্টেরল পরিমাপ হ্রাস পায়। তাই রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে প্রতিদিন অন্ততঃ ৩০ মিনিট ব্যায়াম করা উচিত।

**************************
লেখকঃ ডাঃ মোড়ল নজরুল ইসলাম
চর্মরোগ ও যৌন সমস্যা বিশেষজ্ঞ
দৈনিক ইত্তেফাক, ০৬ জানুয়ারী ২০০৮