বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ ডায়াবেটিসে ভুগছে| এর প্রকোপ দিন দিন বেড়েই চলেছে| এটি সারা জীবনের রোগ, এ রোগ কখনো একেবারে সেরে যায় না| কিন্তু চিকিৎসার মাধ্যমে এ রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়| এ রোগ থেকে শরীরের প্রতিটি অঙ্গকে বাঁচানোর জন্য প্রয়োজন রক্তের সুগার সব সময় নিয়ন্ত্রণে রাখা| এ জন্য চিকিৎসক, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব ও গণমাধ্যম রোগীদের যথেষ্ট সাহায্য করতে পারে| বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, আধুনিক চিকিৎসার মাধ্যমে ডায়াবেটিস পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে রেখে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা সম্ভব|


ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের উপায়
ডায়াবেটিক রোগীর সুগার নিয়ন্ত্রণ করা খুব কঠিন নয়| রোগী ঘরে বসেই নিজের ব্লাড সুগারকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন গ্লুকোমিটার দিয়ে ঘন ঘন রক্তের চিনি বা শর্করার মাত্রা পরীক্ষা করে| এর জন্য প্রয়োজন চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো জানা| যেসব বিষয়ে রোগীদের জানতে হবে তা হলো খাওয়া-দাওয়া, ব্যায়াম, ওষুধ ও সর্বক্ষেত্রে শৃঙ্খলা বোধ|

খাওয়া-দাওয়া
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য খাদ্যের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ| চিকিৎকের পরামর্শ অনুযায়ী সময়মতো ও পরিমাণমতো খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে| আমাদের দেশের বেশির ভাগ ডায়াবেটিক রোগীর শরীরের ওজন অতিরিক্ত নয়| বেশির ভাগ রোগীই প্রোটিন ও ফ্যাট স্বাভাবিক চাহিদার চেয়ে কম খেয়ে থাকেন| শুধু শর্করাটা বেশি খাওয়া হয়|
 
শর্করা কমিয়ে খাবারে শাকসবজির পরিমাণ বাড়ানো দরকার, চিনি ও মিষ্টিজাতীয় জিনিস বাদ দিতে হবে| খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারে অহেতুক চিন্তিত হওয়ার দরকার নেই| খাদ্য ও পুষ্টির চাহিদা ডায়াবেটিস হওয়ার আগে যে রকম থাকে, পরেও একই থাকে|

খাওয়া-দাওয়ার নিয়ম মেনে চলার উদ্দেশ্য হলো ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা, স্বাস্থ্য ভালো রাখা ও শরীরের স্বাভাবিক ওজন বজায় রাখা| খাদ্য ব্যবস্থার গুরুত্ব বোঝানোর জন্য একে মেডিকেল নিউট্রিশন থেরাপি বলা হয়|

ব্যায়াম
আমরা জানি, ব্যায়াম সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি| ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধের ক্ষেত্রে এর ভূমিকা পরীক্ষিত| ব্যায়াম মাংসপেশির জড়তা দূর করে, রক্ত চলাচলে সাহায্য করে| শরীরে ইনসুলিনের কার্যকারিতা ও নিঃসরণ বাড়ায়| ডায়াবেটিক রোগীর রক্তের ভালো কলেস্টেরল কম থাকে, যা করোনারি হার্ট ডিজিজ হওয়ার একটি বড় রিস্ক ফ্যাক্টর বা ঝুঁকি|

প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট করে ব্যায়াম করা প্রয়োজন| ডায়াবেটিক রোগীর ব্যায়ামের বিকল্প নেই| বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, শুধু ব্যায়াম ও খাদ্য নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে কন্ট্রোল করে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সম্ভব|

শিক্ষা
ডায়াবেটিস হলে এ রোগ নিয়েই রোগীকে বাঁচতে হয়| তাই রোগ নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন উপযুক্ত শিক্ষা| রোগীকে সাহায্য করার জন্য রোগীর স্বজনদেরও এই রোগ সম্পর্কে জানতে হবে| শিক্ষিত, প্রণোদিত রোগী নিজেই রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখার দক্ষতা অর্জন করেন, পরবর্তী জীবন ধারা সহজভাবে গ্রহণ করতে পারেন এবং জরুরি অবস্থা সহজেই মোকাবিলা করতে পারেন| গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার জন্য বর্তমানে ডায়াবেটিসের শিক্ষাকে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে অন্যতম ব্যবস্থা বলে গণ্য করা হয়|

শৃঙ্খলা
শৃঙ্খলা ডায়াবেটিসের রোগীর জীবনকাঠি| শৃঙ্খলার ব্যাপারে শ্রদ্ধেয় প্রফেসর মো· ইব্রাহিম সব সময় গুরুত্ব দিতেন, রোগীকে জীবনের সব ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা মেনে চলার উপদেশ দিতেন| যারা শৃঙ্খলা মেনে চলে, তাদের পক্ষে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা খুব সহজ ব্যাপার|

ওষুধ
খাদ্যব্যবস্থা, ব্যায়াম, শিক্ষাসহ সব ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা মেনে চলা প্রত্যেক ডায়াবেটিসের রোগীর জন্য অপরিহার্য| এতে টাইপ-২ ডায়াবেটিসের রোগীর প্রথম দিকে অনেকেরই শর্করা নিয়ন্ত্রণে থাকে| মনে রাখতে হবে, ডায়াবেটিস একটি প্রগ্রেসিভ রোগ| সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সুগার নিয়ন্ত্রণের জন্য অনেক ডায়াবেটিসের রোগীর ওষুধ সেবনের প্রয়োজন হয়| টাইপ-১ রোগীদের বাঁচার জন্য ইনসুলিন অপরিহার্য|

সুগার নিয়ন্ত্রণের জন্য টাইপ-২ রোগীদেরও অনেক সময় ইনসুলিনের প্রয়োজন হয়| আবার এও দেখা গেছে, প্রথম দিকে টাইপ-২ রোগীদের যারা শর্করা বেশি থাকায় ইনসুলিন নিয়েছে, পরবর্তী সময়ে বিনা ওষুধেও তাদের রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে থাকছে|

রোগীর সামগ্রিক অবস্থার ওপর চিকিৎসক ঠিক করে দেন রোগীর কী প্রয়োজন| সাধারণত রোগীরা ট্যাবলেটকে ইনসুলিন গ্রহণের চেয়ে বেশি পছন্দ করে| এখন বাজারে ডায়াবেটিসের বিভিন্ন ট্যাবলেট পাওয়া যায়| এর মাধ্যমে বেশির ভাগ ডায়াবেটিসের রোগীর শর্করা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব|

ইনসুলিন
ডায়াবেটিসের রোগীর রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণের সবচেয়ে কার্যকর ওষুধ হচ্ছে ইনসুলিন| ইনসুলিন ইনজেকশনের মাধ্যমে নিতে হয় বলে অনেক রোগীই ভয় পায়| ট্যাবলেটের চেয়ে এর দাম বেশি|

ইনসুলিনের প্রয়োগ শুরু হয় ১৯২১ সাল থেকে| এই দীর্ঘ পথপরিক্রমায় ইনসুলিনের ধরন প্রয়োগের ক্ষেত্রেও অনেক উন্নতি হয়েছে|

এখন আধুনিক ইনসুলিন দিয়ে খাবার সামনে নিয়ে অনেকক্ষণ বসে থাকতে হয় না| দাওয়াত খাওয়ার জন্য ইনসুলিন সঙ্গে নিয়ে যেতে হয় না| এখন উন্নত মানের ইনসুলিন শোয়ার আগে একবার নিলেই হয়| সঙ্গে ট্যাবলেট নাশতার সঙ্গে খেতে হয়|

নতুন ইনসুলিন দিয়ে সহজেই রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করা যায়| এতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় তেমন ব্যাঘাত ঘটে না| এই ইনসুলিনগুলো বাংলাদেশেও পাওয়া যায়| তবে দাম কিছুটা বেশি|

ইনসুলিন প্রয়োগে নতুনত্ব
ডায়াবেটিসের রোগীদের ইনসুলিন নেওয়ার ব্যাপারে বড় বাধা হলো বারবার ইনজেশন দেওয়া| যুগের চাহিদার সঙ্গে সংগতি রেখে ইনসুলিন প্রয়োগেও এসেছে নতুনত্ব| এখন ইনসুলিন ইনহেলার ও ওরাল স্প্রে হিসেবে পাওয়া যায়|

এতে ডায়াবেটিসের রোগীদের দীর্ঘদিনের আশা পূরণ হয়েছে| এর প্রয়োগ-প্রণালী খুবই সহজ| শর্করা নিয়ন্ত্রণও ভালোভাবে হয়| তবে ধূমপায়ীরা এ সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে| তাই এখনই ধূমপান ত্যাগ করুন| এই ইনসুলিনের দাম একটু বেশি| ভবিষ্যতে বাংলাদেশেও এগুলো পাওয়া যাবে|

কীভাবে বুঝবেন আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আছে কি না তা দেখার জন্য মাঝেমধ্যে রক্তের শর্করা পরীক্ষা করতে হবে| গ্লুকোমিটার দিয়ে বাড়িতে বসে সহজেই তা করা যায়| এসব ছোট মেশিন অল্প দামে বাংলাদেশেও পাওয়া যায়| অভুক্ত অবস্থায় রক্তের সুগারের পরিমাণ ছয় মিলি মোল/লিটার এবং খাওয়ার পরে আট মিলি মোল/লিটারের মধ্যে হলে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মনে করতে হবে| রক্তে ঐদঅ১ধ মেপেও নিয়ন্ত্রণের ধারণা করা যায়| ঐদঅ১ধ শতকরা ৭ ভাগের নিচে হলে তিন মাস সুগার ভালো নিয়ন্ত্রণে আছে বলে ধরা যায়|

পর্যবেক্ষণ করা
নীরব ঘাতক ডায়াবেটিস সুনিয়ন্ত্রণে রাখতে পারলে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা সম্ভব| অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস প্রতিনিয়তই রোগীর জন্য বয়ে আনে সমস্যা| অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগীকে অন্ধ করতে পারে, পঙ্গু করতে পারে| কিডনি ও হার্টের ক্ষতি করে অকালমৃত্যুর কোলে ঠেলে দিতে পারে|
এ জন্য মাঝেমধ্যে অবশ্যই ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা দরকার|

এ ছাড়া রক্তচাপ, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা পরীক্ষা করে দেখতে হবে| হার্ট, কিডনি ও চোখের কোনো সমস্যা হচ্ছে কি না তা নিয়ে চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন| মনে রাখবেন, প্রাথমিক অবস্থায় সমস্যা ধরা পড়লে সহজেই চিকিৎসা করা যায়| আধুনিক পদ্ধতিতে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখুন এবং সুস্থ, স্বাভাবিক, কর্মময় জীবন উপভোগ করুন|

**************************
লেখকঃ  ডা· মো· ফরিদ উদ্দিন
মেডিসিন, ডায়াবেটিস, থাইরয়েড ও হরমোন বিশেষজ্ঞ
সহযোগী অধ্যাপক, অ্যান্ডোক্রাইন মেডিসিন
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ২১ নভেম্বর ২০০৭