ডায়াবেটিস এমন এক বিশ্বজোড়া সমস্যা যার রয়েছে সমাজ, মানুষ ও অর্থনীতির ওপর বিধ্বংসী প্রভাব| বর্তমানে বিশ্বজুড়ে ডায়াবেটিস রোগী সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৫০ মিলিয়ন| প্রতিবছর এতে যোগ হচ্ছে নতুন সাত মিলিয়ন রোগী| একে প্রতিহত করার উদ্যোগ না নিলে, অনুমান আগামী প্রজ্নে এ সংখ্যা হয়ে দাঁড়াবে ৩৮০ মিলিয়নে| এই নীরব ঘাতক প্রতি ১০ সেকেন্ডে প্রাণ হরণ করছে একজন মানুষের| এই রোগ এমন এক মহামারি আকারে এগোচ্ছে, যা বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্য পরিচর্যাব্যবস্থার জন্য বড় হুমকি হয়ে দাঁড়াচ্ছে| পৃথিবীর আদিম অধিবাসীকে নিশ্চিহß করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে, ধ্বংস করছে গোটা অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে| ডায়াবেটিস বেড়ে চলেছে শিশু ও তরুণদের মধ্যে| বাড়ছে এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, ওসেনিয়া, ক্যারারিয়ান অঞ্চলে বয়স্কদের মধ্যেও|

অথচ এ রোগের মহামারি মোকাবিলা করার মতো জ্ঞান আমাদের রয়েছে| ডায়াবেটিসের কারণে দুর্ভোগ ও অকালমৃত্যু রোধ করা তেমন কঠিন ব্যাপার নয়| জটিলতাগুলো প্রতিরোধ করতে বা এর গতি শ্লথ করার সাশ্রয়ী কলাকৌশল আমাদের আয়ত্তের মধ্যে রয়েছে| ডায়াবেটিস নিরাময় করা যায় না, তবে একে নিয়ন্ত্রণ করা যায় সম্পূর্ণভবে; টাইপ-২ ডায়াবেটিস অনেকটাই প্রতিরোধ করা সম্ভব| সরকার ও বেসরকারি সংস্থা এ জন্য প্রবর্তন করতে পারে সাশ্রয়ী কম খরচের কৌশল-খাওয়া-দাওয়া পরিবর্তন করে, শরীরচর্চা বাড়িয়ে, জীবনযাপনে পরিবর্তন এনে এই রোগের অগ্রগতি রোধ করা সম্ভব| বাংলাদেশ ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন এ লক্ষ্যে নিয়েছে অগ্রণী ভূমিকা| সরকারও এখন অনেক বেশি উদ্যোগী|

প্রতিবছর এ দিবস উদযাপনের একটি থিম বা প্রতিপাদ্য বিষয় থাকে| এ বছরের থিম হলো ‘শিশু ও তরুণদের মধ্যে ডায়াবেটিস’| ২০০৭ ও ২০০৮ সাল ধরে চলবে এ লক্ষ্যে অভিযান| এ বছর ধরে শিশুদের জন্য অর্থ বরাদ্দের চেষ্টা চলবে| ডায়াবেটিসের সতর্ক সংকেত সম্পর্কে আরও সচেতনতা সৃষ্টি করা হবে| শিশুদের ডায়াবেটিসের একটি মারাত্মক জটিলতা ‘ডায়াবেটিস কিটোএসিডোসিস’ হ্রাস করার উদ্যোগ নেওয়া হবে এবং এসব উদ্যোগকে সহায়তা দেওয়া হবে| শিশুদের মধ্যে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনকে উৎসাহিত করা হবে|

এ বছর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছে জাতিসংঘ| সে বিবেচনায় এ দিবসের লোগো নির্বাচন করা হয়েছে আকাশি নীল বৃত্ত| এই দিবসের এবারের ্লোগান ‘যুক্ত হন সবাই ডায়াবেটিসের জন্য’, এর সঙ্গে এ চিহßটি সংগতিপূর্ণ| ডায়াবেটিস রোগকে পরাভূত করার জন্য বিশ্বজুড়ে একত্র লড়াইকে তাৎপর্যবহ করার জন্য আকাশি নীল এ বৃত্তটি যথাযথ| এই চিহ্নের তাৎপর্য ইতিবাচকঃ বৃত্তটি জীবন ও স্বাস্থ্যের চিহ্ন| নীল রংটি নীল আকাশের প্রতিফলন, যে আকাশ একত্র করে বিশ্বের সব দেশকে| জাতিসংঘের পতাকার রংও নীল|
আমাদের শরীরের ভেতর একটি যন্ত্র হলো অগ্ন্যাশয়| অগ্ন্যাশয়ের বিটাকোষ থেকে নিঃসৃত হরমোন ইনসুলিনের কাজ হলো রক্ত থেকে গ্লুকোজ কোষের ভেতর ঢুকতে সাহায্য করা, সেই গ্লুকোজ দহন হয়ে তৈরি হয় শক্তি| ইনসুলিন উৎপাদন ব্যর্থ হলে বা ইনসুলিনের কার্যকারিতা নষ্ট হলে রক্তে বেড়ে যায় গ্লুকোজের মান| এর চিকিৎসা না হলে ক্রমে ক্রমে দেহের দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতি হয়, নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পার দেহের নানা যন্ত্র|

মূলত ডায়াবেটিস দু ধরনের
টাইপ-১ ডায়াবেটিসঃ এই রোগে অগ্ন্যাশয়ের যে কোষগুলো ইনসুলিন তৈরি করে সেগুলো ধ্বংস হয়ে যায়| পরিণতিতে যাদের টাইপ-১ ডায়াবেটিস আছে তাদের ইনসুলিন লক্ষণ হয় অতি সামান্য, অনেক সময় হয়ই না| বেঁচে থাকার জন্য এসব রোগীকে অবশ্যই নিতে হয় ইনসুলিন ইনজেকশন অথবা ইনসুলিন পাম্প| আজকাল শ্বাসের মাধ্যমে ইনসুলিন গ্রহণের চেষ্টা চলছে| এ ধরনের ডায়াবেটিসের অন্য নাম ‘তরুণ-বহুমূত্র’, বেশি হয় শিশু ও কম বয়সীদের|

টাইপ-২ ডাযাবেটিসঃ এ ধরনের ডায়াবেটিসের মূলে রয়েছে ‘ইনসুলিন রেজিস্ট্যান্স’| যাদের টাইপ-২ ডায়াবেটিস হয় তাদের যে ইনসুলিন উৎপন্ন হয়, সেই ইনসুলিনও শরীরে ব্যবহার করতে ব্যর্থ হয়| একে মোকাবিলা করার প্রথম ধাপ হলো ঠিকমতো খাওয়া ও ব্যায়াম| আবার অনেক সময় এর জন্য প্রয়োজন হয় মুখে খাবার ওষুধ, এমনকি ইনসুলিন ইনজেকশনও| বিশ্বজুড়ে যে ২৪৮ মিলিয়ন ডায়াবেটিসের রোগী রয়েছে তাদের ৯০ শতাংশের বেশি হলো টাইপ-২ ডায়াবেটিস|
টাইপ-১ ও টাইপ-২ ডায়াবেটিস দুটোই গুরুতর| এদের দুটোই শিশু ও তরুণদের হয়, তাই ডায়াবেটিসের সতর্ক সংকেত জানা খুবই প্রয়োজন|

তৃতীয় এক ধরনের ডায়াবেটিস রয়েছে, যা গর্ভকালে অনেক মহিলার হয়ে থাকে| আছে অন্য ধরনের ডায়াবেটিস, যা বিরল|
এমন কিছু শিশু রয়েছে, যাদের ডায়াবেটিস হয়েছে তবে, এতে রয়েছে টাইপ-১ ও টাইপ-২ ডায়াবেটিসের লক্ষণ উপসর্গের মিশ্রণ-একে সংকর ডায়াবেটিসও বলে অনেকে| শিশু ও তরুণদের মধ্যে ওজন বাড়া ও স্থূলতা বাড়ার সঙ্গে এর সংযোগ রয়েছে| মৃদু ডায়াবেটিস বলে কিছু নেই|

ডায়াবেটিসের সতর্ক সংকেতঃ ঘন ঘন প্রস্রাব, অতিরিক্ত পিপাসা, অতিরিক্ত ক্ষুধা, ওজন হানি, ক্লান্তি, মনোযোগের অভাব, উৎসাহের অভাব, ঝাপসা দৃষ্টি, বমি ও পেটে ব্যথা (অনেকের ফ্লু বলে ভ্রম)| যেসব শিশুর টাইপ-২ ডায়াবেটিস হয় তাদের মধ্যে এ লক্ষণ÷লো নাও থাকতে পারে বা মুদু হতে পারে|
জটিলতা হতে পারে ডায়াবেটিস থেকেঃ রোগটি হলো ক্রনিক জীবনব্যাপী রোগ, যার জন্য প্রয়োজন সতর্ক মনিটরিং ও নিয়ন্ত্রণ| প্রয়োজনে সঠিক ব্যবস্থাপনা| তা না হলে অনেক সময় সৃষ্টি হতে পারে জটিলতা, নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পারে দেহের যন্ত্র|
হূদরোগ ও রক্তবাহ রোগঃ করোনারি হূদরোগ, হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক|

কিডনির রোগঃ কিডনি নিষ্ক্রিয় হতে পারে| প্রয়োজন হতে পারে ডায়ালিসিন ও কিডনি সংস্থাপন| চোখের রোগঃ অক্ষিপটের ক্ষতি থেকে অন্ধত্ব পর্যন্ত|
 
*************************
লেখকঃ অধ্যাপক শুভাগত চৌধুরী
পরিচালক, ল্যাবরেটরি সার্ভিসেস
বারডেম হাসপাতাল, ঢাকা।
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ১৪ নভেম্বর ২০০৭