স্বাস্থ্যকথা - http://health.amardesh.com
ডায়াবেটিস প্রতিরোধে আমরা সবাই
http://health.amardesh.com/articles/37/1/aaaaaaaaa-aaaaaaaaaa-aaaa-aaaa/Page1.html
Daily Prothom Alo
 
By Daily Prothom Alo
Published on 11/24/2007
 
(ডা· ফজলে রাব্বী খান) ধারণা করা হয়, বর্তমানে পৃথিবীতে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা ২৫ কোটি, ২০০৩ সালেও যা ছিল ১৯·৪ কোটি| আর এভাবে চলতে থাকলে ২০২৫ সাল নাগাদ পৃথিবীতে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৮ কোটি|

ডায়াবেটিস প্রতিরোধে আমরা সবাই
ধারণা করা হয়, বর্তমানে পৃথিবীতে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা ২৫ কোটি, ২০০৩ সালেও যা ছিল ১৯·৪ কোটি| আর এভাবে চলতে থাকলে ২০২৫ সাল নাগাদ পৃথিবীতে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৮ কোটি| বাংলাদেশে তা দাঁড়াবে বর্তমানের লোকসংখ্যার প্রায় অর্ধেক অর্থাৎ সাড়ে সাত কোটি| আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশনের হিসাবমতে, প্রতি ১০ সেকেন্ডে একজন মৃতুøবরণ করে ডায়াবেটিস এবং তার দ্বারা সৃষ্ট জটিলতার কারণে| প্রতি ১০ সেকেন্ডে দুজন নতুন করে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়| কাজেই যে কারও পক্ষেই সম্ভব এর ভয়াবহতা আঁচ করা|

জাতিসংঘ ঘোষণা ভয়াবহতা দূর করতে দরকার সর্বক্ষেত্রে সমন্বিত উদ্যোগ| সময়োপযোগী এবং যথার্থই জাতিসংঘ ঘোষণা-ডায়াবেটিস একটি দীর্ঘমেয়াদি, অবক্ষয়ী ও ব্যয়বহুল রোগ, যা অনেক মারাত্মক জটিলতার সৃষ্টি করতে পারে এবং এ রোগ এখন পরিবার, রাষ্ট্র ও সারা বিশ্বের জন্য চরম হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে| ২০০৬ সালের ২০ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে এ ঘোষণার পক্ষে ৬১/২২৫তম প্রস্তাব গৃহীত হয়| সে অনুযায়ী ২০০৭ সাল থেকে প্রতিবছর ১৪ নভেম্বর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসকে একটি জাতিসংঘ দিবস হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে|

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসকে স্বীকৃতি দিয়ে এবং বিশ্বব্যাপী এ রোগের ক্ষতিকর প্রভাবকে বিশেষ  গুরুত্ব দিয়ে জাতিসংঘ ডায়াবেটিসের বিরুদ্ধে সংগ্রামে একাত্মতা প্রকাশ করেছে|’
এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ১৯৯১ সাল থেকে এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন ১৭টি ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে এ দিবসটিকে পালন করেছে|

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়ঃ ‘শিশু-কিশোরদের ডায়াবেটিস’-এমনকি ২০০৮ সালেও একই বিষয়ে এ দিবসটিকে পালন করা হবে| কারণ, বর্তমান হিসাব অনুযায়ী শৈশব ও কৈশোরের সবচেয়ে সাধারণ অথচ দীর্ঘমেয়াদি রোগ হচ্ছে ডায়াবেটিস|

এটি শিশুদের যেকোনো বয়স-এমনকি নবজাতক অবস্থায়ও ধরা পড়তে পারে| সমীক্ষা অনুযায়ী, সারা পৃথিবীতে এ বয়সে ডায়াবেটিসে (টাইপ-১ ডায়াবেটিস) আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় সাড়ে চার লাখ| আর এসব শিশুর সিকি ভাগই অবস্থান আমাদের এ অঞ্চলে অর্থাৎ সাউথ-ইস্ট এশিয়ায়| আগে একসময় ধারণা করা হতো, ডায়াবেটিস মূলত প্রাপ্তবয়স্কদের রোগ, তবে শিশুদের কদাচিৎ হয় বৈকি।
 
এ ধারণার এখন পরিবর্তন হয়েছে| শিশুদের ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার হার এখন আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে| বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আরেক হিসাব অনুযায়ী, ১৫ বছরের নিচের শিশু ও কিশোরদের মধ্যে সারা বিশ্বে প্রতিদিন প্রায় ২০০ শিশু-কিশোর নতুন করে ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত হচ্ছে|

জ্নগত কিংবা পরিবেশগত কিছু কারণ ছাড়া শিশু-কিশোরদের ওজনাধিক্য ও মেদবাহুল্যই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার মূল কারণ| বিশ্বজুড়ে শিশুরা এখন খেলাধুলা, সাঁতার কিংবা সাইকেল চালানোর চেয়ে ঘরে বসে টিভি দেখা এবং কম্পিউটারে ভিডিও গেমস খেলে সময় বেশি পার করছে| কাজেই একদিকে এ ধরনের অভ্যাসে শারীরিক পরিশ্রম কমে যাওয়া, অন্যদিকে অতিমাত্রায় উচ্চ ক্যালরিযুক্ত জাংক এবং ফাস্টফুডে অভ্যস্ত হওয়ার দরুন শিশু-কিশোরদের মধ্যে এ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বাড়ছে|

শিশুদের ডায়াবেটিসঃ শিশুদের ডায়াবেটিস বয়স্কদের চেয়ে কিছুটা হলেও বেশি স্পর্শকাতর| কত ক্ষেত্রে শিশুরা বুঝতেই চায় না তার সমস্যা সম্পর্কে| তারপর নিয়মিত ওষুধ সেবন, ইনসুলিন নেওয়া, রক্তের সুগার মনিটর, খাদ্য গ্রহণে ভারসাম্যতার কড়াকড়ি তো আছেই| আর এসবই একটি শিশুর সুস্থ ও স্বাভাবিক বিকাশকে ব্যাহত করতে পারে| কাজেই এ বিষয়ে পুরো পরিবারকে সংশ্লিষ্ট হতে হবে|

বুঝতে হবে, শিশু-কিশোরদের ডায়াবেটিস হওয়ার অর্থই সারা জীবনের জন্য এ পরিস্থিতি মেনে নেওয়া| এ জন্য রক্তের সুগার সুষ্ঠুভাবে সুনিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি শিশু-কিশোরের মানসিক ও দৈহিক বৃদ্ধি এবং বিকাশ যেন স্বাভাবিক থাকে, সে বিষয়েও খেয়াল রাখতে হবে|
দরকার হলে বাড়ির বাইরের পরিবেশেও যেমনঃ স্কুলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশু-কিশোরের যত্নের ব্যবস্থা করতে হবে| দরকার হলে ডায়াবেটিসের মূল চিকিৎসকের পাশাপাশি একজন মনোচিকিৎসক এবং পুষ্টিবিদের সমন্বয়ে একটি টিম তৈরি করে ডায়াবেটিক শিশু ও তার পরিবারকে শারীরিক-মানসিক সব ধরনের সহযোগিতা দিতে হবে|

নির্ভরতা প্রতিরোধঃ যেহেতু ডায়াবেটিস হওয়ার অর্থই হলো এ রোগকে সারা জীবন বহন করা, কাজেই সবচেয়ে উত্তম হলো ডায়াবেটিস যেন শরীরে বাসা না বাঁধতে পারে| তা শিশু-কিশোর হোক, আর বয়স্কই হোক| এটাই প্রাথমিক প্রতিরোধ| প্রয়োজন অতিরিক্ত আহার বর্জন এবং পরিমিত পুষ্টিমানের আহার গ্রহণের পাশাপাশি কায়িক পরিশ্রম|
অর্থাৎ বয়স, ওজন ও উচ্চতা অনুযায়ী ঠিক যতটুকু খাবার দরকার, একজন পুষ্টিবিদের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত বিরতিতে ঠিক ততটুকু খাবারই খাওয়া প্রয়োজন এবং সেই খাবার অনুযায়ী রক্তে যতটুকু গ্লুকোজ জমা হলো, তারও সমন্বয়সাধন জরুরি| কাজেই পরিমিত কায়িক শ্রম না হলে নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে| শিশু-কিশোরদের বেলায় নিয়মিত খেলাধুলাই যথেষ্ট|

শিশুরা জ্নগতভাবেই ছোটাছুটি ও খেলাধুলা পছন্দ করে| কিন্তু অতি উচ্চ ক্যালরিমানের অতিরিক্ত খাবারের (জাংক ও ফাস্টফুড) জন্য অতিরিক্ত মোটা হওয়ায় এ প্রবণতা কমতে পারে| এ ক্ষেত্রে খেলার ছলে কিংবা আনন্দের মাঝে এ প্রবণতা বাড়াতে হবে| আর ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশু-কিশোরদের জন্য তো এগুলো বাধ্যতামূলক|

শিশু-কিশোরদের যথেষ্ট সময় দিয়ে ডায়াবেটিস রোগ সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে, যাতে তারা নিজেরাই খাবার ও নিয়মিত ব্যায়ামের গুরুত্ব বুঝতে পারে| শিশুদের বোঝাতে হবে, ডায়াবেটিস অর্থাৎ রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণে না থাকলে এর ফলস্বরূপ কী কী জটিলতা দেখা দিতে পারে| তাদের বোঝাতে হবে, তারা আর দশটা স্বাভাবিক শিশুর মতোই, উপরন্তু তাদের মাঝে বাড়তি একটা মেডিকেল কনডিশন আছে, যার যত্ন ওকেই নিতে হবে|

আর সব কিছুর পেছনে আছে সামগ্রিক সচেতনতা| একমাত্র সচেতনতাই পারে বিশ্বজনীন স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে ভয়াবহ হুমকিস্বরূপ এ অসংক্রামক ব্যাধির হাত থেকে নিজেদের রক্ষা করতে| কাজেই আসুন সবাই মিলে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করি| বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের গুলোগানও তাই|

***********************
লেখকঃ ডা· ফজলে রাব্বী খান
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ১৪ নেভম্বর ২০০৭