ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না রাখলে গোটা শরীরের সমূহ ক্ষতি সাধিত হয়| শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস পায় এবং এতে শরীরের অন্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের যেমন ক্ষতি হয়, তেমনি দাঁত ও মুখগহ্বরেরও সমূহ ক্ষতি হয়|

ডায়াবেটিসের কারণে রক্তবাহ গুলো চিকন ও সরু হতে থাকে| ফলে দেহে রক্তের স্বাভাবিক গতি ব্যাহত হয় এবং অক্সিজেন ও অন্যান্য উপকরণ দেহের সব অংশে ঠিকমতো পৌঁছায় না| এ অবস্থায় মাড়ি ও দাঁতে স্বাভাবিক রক্তের পরিমাণ ও গতি ব্যাহত হয়| এ সময় মাড়িতে কোনো আঘাত লাগলে প্রদাহ দেখা দেয়| তা ছাড়া মাড়িতে আগের কোনো রোগ থাকলে এর সংক্রমণ আরও বাড়ে|

দেহে ইনসুলিন ঘাটতির ফলে আমিষেরও ঘাটতি হয় বলে কোষ-কলার স্বাভাবিক বৃদ্ধি, সংস্কার ও উৎপাদন ব্যাহত হয়| তাই কোনো স্থানে ঘা হলে তা শুকাতে দেরি হয়|
ডায়াবেটিস রোগীদের দন্তক্ষয় বা ডেন্টাল ক্যারিজ দ্রুত হয়; কারণ মুখের লালার সঙ্গে গ্লুকোজ এক ধরনের আণুবীক্ষণিক জীবাণুর সঙ্গে মিলে এসিড তৈরি করে, যা দাঁতের শক্ত আবরণ এনামেলকে ক্ষয় করে এবং ধীরে ধীরে দাঁতে গর্ত তৈরি করে| মুখের লালার স্বাভাবিক গতি ব্যাহত হয় এবং পরিমাণ কমে যায় বলে মুখে অতিরিক্ত শুকনো পরিবেশে আহারের কণাগুলো ধুয়েমুছে যেতে পারে না| এই খাদ্যকণা গুলো দীর্ঘদিন দাঁতের গায়ে ও মাড়ির ফাঁকে জমে ডেন্টাল প্লাক তৈরি করে| পরে এ থেকে মাড়ির প্রদাহ ও মাড়িতে পুঁজ হয়, মুখে অতিরিক্ত দুর্গন্ধ ছড়ায় এবং দাঁত নড়তে থাকে|

তাই ডায়াবেটিক রোগীদের উচিত ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি একজন ডেন্টাল সার্জনের তত্ত্বাবধানে থাকা|

***********************
লেখকঃ ডা· এস এম জাকারিয়া
ওরাল অ্যান্ড ডেন্টাল সার্জন
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ১৪ নেভম্বর ২০০৭