দিন দিন মাথার চুল পাতলা হয়ে যাচ্ছে। ঝরে যাচ্ছে চুল, টাক পড়ে যাচ্ছে এমন লোকের সংখ্যা অনেক। অনেক সময় শুধু সামনের দিকের চুল পড়ে । আবার অনেক সময় পুরো মাথার চুলই হালকা হয়ে যায়। প্রতিদিন যদি ১০০টি চুল পড়ে তখন মাথা ফাঁকা হতে শুরু করে। চুল ঝরে পড়ার নানা কারণ রয়েছে। প্রচলিত ধারণা আছে, চুল টেনে বাঁধলে চুল দ্রুত লম্বা হয়। এটি ভুল ধারণা। এতে চুল ঝরে পড়ে দ্রুত। প্রসব পরবর্তী দুই-পাঁচ মাস পর্যন্ত চুল বেশি ঝরতে পারে। তবে এ ব্যাপারে চিকিৎসা নেয়া প্রয়োজন। জ্বর বা অন্যান্য অসুখের সময়ও চুল পড়ে যায়। এ ব্যাপারে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। কিছু দিন পর এ চুল আবার গজিয়ে থাকে।
দীর্ঘ দিন মানসিক দুশ্চিন্তা ও বিষাদগ্রস্ত থাকলে চুল পড়তে শুরু করে। দুশ্চিন্তা বেশি দিন থাকলে মাথা ফাকা হওয়ার আশঙ্কা বেশি।

কিছু কিছু ওষুধের কারণে চুল বেশি পড়তে পরে। যেমন ইডোমেথাসিন, জেন্টামাইসিন ইত্যাদি। আবার ক্যানসারের ওষুধে চুল খুব বেশি ঝরে যায়।

কম খাওয়া-দাওয়া বা পুষ্টিহীনতাও চুল পড়ার কারণ। ওজন কমানোর জন্য কম খেতে শুরু করার পর অনেকেরই চুল পড়ে যায়।

খুশকি চুলের একটি বড় শত্রু। চুল পাতলা হওয়ার অন্যতম কারণ খুশকি। মাথা চুলকালে গুঁড়া গুঁড়া খোসা দেখা যাওয়াটাকেই খুশকি বলে। খুশকি দমিয়ে রাখতে পারলে মাথায় যে চুল আছে তা অন্তত ১৫-২০ বছর টিকিয়ে রাখা যাবে। আবার অনেকের মাথার ত্বক তেলতেলে ভাব থাকে। এগুলোর চিকিৎসা প্রয়োজন। পুরুষ হরমোনের প্রভাবেও চুল পড়ে। তাই টাক পড়ার আগেই চুল ঝরার কারণ নির্ণয় করে সঠিক চিকিৎসা নিন।


**************************
ডা. ওয়ানাইজা
চেম্বারঃ যুবক মেডিক্যাল সার্ভিসেস , বাড়িঃ ১৬, রোডঃ ২৮ (পুরাতন), ১৫ (নতুন), ধানমন্ডি আবাসিক এলাকা, ঢাকা (শনি, রবি ও বৃহস্পতিবার)।
দৈনিক নয়া দিগন্ত, ০৪ মে ২০০৮