দাঁত আমাদের শরীরের খুবই গুরুত্বপুর্ণ অংশ, যা খুবই শক্ত ও মজবুত। শক্ত ও কঠিন হওয়া সত্ত্বেও আকস্মিক আঘাতে দাঁতের বিভিন্ন ক্ষতি হতে পারে। যেমন-হঠাৎ আঘাত পেয়ে দাঁত ভেঙে যেতে পারে, দাঁত টুকরো হয়ে যেতে পারে কিংবা দাঁতের গায়ে দেখা দিতে পারে ফাটল বা চিড়। দাঁতের গায়ে ফাটলের ক্ষেত্রে ডেন্টাল সার্জনরা ফ্র্যাকচার শব্দটি ব্যবহার করে থাকেন। আপাতদৃষ্টিতে এটি মারাত্মক মনে না হলেও চিকিৎসার অভাবে দাঁতের ফ্র্যাকচার জটিল অবস্হার সৃষ্টি করতে পারে। তাই এ সম্পর্কে সকলেরই জানা থাকা প্রয়োজন।

বাড়ির দেয়ালে যখন কোনো ফাটল দেখা যায় তা প্রথমদিকে খুবই সাধারণ থাকে। কিন্তু সঠিক সময়ে মেরামত করা না হলে একসময় তা বিশ্রী হয়ে যায়। এমনকি বেশি দুর্বল হয়ে পড়লে তা ভেঙেও যায়। আমাদের দাঁতের ফ্র্যাকচার এরকমই একটি ফাটল, যা চিকিৎসার অভাবে প্রথমে বিশ্রী ও পরে জটিল আকৃতি ধারণ করে। দাঁতে ফাটল দেখা দিলে প্রথম অবস্হায় দাঁতে ব্যথা থাকতেও পারে আবার নাও থাকতে পারে। তবে প্রথম দিকে বোঝাই যায় না, দাঁতে ফাটল দেখা দিয়েছে। দাঁতে সাধারণ ফ্র্যাকচার হলে সামান্য সমস্যা হয়ে থাকে, যার চিকিৎসা খুবই সহজ। অন্যদিকে মারাত্মক ও গভীর ফ্র্যাকচারে দাঁতে দেখা দিতে পারে প্রচন্ড ব্যথা। এক্ষেত্রে ফ্র্যাকচারে সৃষ্ট ক্ষতি দাঁতের ভেতরের স্নায়ুকেও ক্ষতিগ্রস্ত করে ফেলে, যার ফলে দেখা দিয়ে থাকে প্রচন্ড অসহনীয় ব্যথা। এ ব্যথা কোনো কোনো সময় স্হির থাকতে পারে, আবার ব্যথা কমতে-বাড়তেও পারে এমনকি কোনো সময় থাকতেও পারে আবার নাও থাকতে পারে।

দাঁতের ফাটল যেহেতু প্রথমদিকে দৃশ্যমান থাকে না অর্থাৎ খালি চোখে দেখা যায় না সেক্ষেত্রে কীভাবে বোঝা যাবে দাঁতে ফাটল দেখা দিয়েছে? বেশিরভাগ মানুষই দাঁতের ফাটল খাদ্যদ্রব্য চিবুতে গিয়ে বুঝতে পারেন। এতে অনেক সময় ব্যথা আবার অনেক সময় সামান্য শব্দসহ অস্বস্তি অনুভব হতে পারে। তবে যাই হোক না কেন, দাঁতে ফাটল হয়েছে ধারণা করা মাত্রই সাবধান হয়ে যেতে হবে। কারণ খাদ্য চিবুতে গিয়ে জোরে চাপ পড়লে দাঁতের ফাটলটি বেড়ে গিয়ে দাঁত ভেঙে যেতে পারে।

দাঁতের ফাটল আমাদের এক বিশ্রী অভিজ্ঞতা। কারণ যদি তা আমরা প্রথমদিকে শনাক্ত করতে না পারি তবে তা এক পর্যায়ে বিশ্রী দাগ হয়ে মুখের সৌন্দর্যকে নষ্ট করে দিতে পারে। অন্যদিকে দাঁতের ফাটলে সৃষ্ট ব্যথা খুবই মারাত্মক। বাড়িতে এর চিকিৎসা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। আপনাকে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ ডেন্টিস্টের কাছে যেতে হবে। বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা, প্রয়োজনে এক্স-রে করে ডেন্টাল সার্জন শনাক্ত করবেন আপনার দাঁতের ফাটলের ধরন। সাধারণ ফাটলের ক্ষেত্রে অনেক সময় ক্ষতিগ্রস্ত জায়গায় পালিশের মাধ্যমে বিশ্রী দাগ দুর করা হয়। অন্যান্য ফ্র্যাকচারের ক্ষেত্রে সাধারণত ফিলিং ও রুট ক্যানেল চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। দাঁতের যে কোনো মারাত্মক ফাটলের ক্ষেত্রে অবশ্যই রুট ক্যানেল করে ক্যাপ করা উচিত। শুধু ক্যাপ করলে ভবিষ্যতে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

দাঁতের ফাটল শুধু বিশ্রী অবস্হার সৃষ্টি করে না, ফাটলের জন্য দেখা দিতে পারে জটিল সমস্যাও, যা আক্রান্ত দাঁত থেকে ছড়িয়ে পড়তে পারে সুস্হ দাঁত ও মাঢ়িতে। তাই দাঁতে ফাটল হয়েছে মনে হলেই আর দেরি করবেন না। এক্ষুনি চলে যান একজন অভিজ্ঞ ডেন্টাল সার্জনের কাছে।


**************************
ডা. আওরঙ্গজেব আরু
লেখকঃ কসালটেন্ট, ইলাহী ডেন্টাল কেয়ার, মেরুল বাড্ডা, ঢাকা।  
 আমার দেশ, ০৬ মে ২০০৮