দাঁত ও মাড়ি থেকে জীবাণুরাশি (জীবানু-প্রলেপ) দূরীভূত রাখাই দাঁত ও মাড়ির সুস্থতার প্রধান চাবিকাঠি। এজন্য নিয়মিত ও সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত ও মাড়ি পরিষ্কার রাখতে হবে। সুষ্ঠু ও সম্পূর্ণভাবে দাঁত পরিষ্কারের জন্য ব্রাশ, খিলাল, ফোসিং, কুলি করা ও মাড়ি মর্দন করা প্রয়োজন। তাছাড়া প্রতি ছয় মাস অন্তর একবার এবং মুখে ব্যথা, ঘা, বা রক্তক্ষরণ হলেই দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজন হলে চিকিৎসক স্কেলিং করতে উপদেশ দেবেন। দাঁতে পাথর জমলে বা মাড়িতে পকেট হলে অবশ্যই স্কেলিং দরকার। স্কেলিং করলে দাঁত নড়ে যায় বা মাড়ি ফাঁকা হয়ে যায় বলে অনেকে অভিযোগ করনে। এটা স্কেলিংয়ের জন্য হয় না। বরং দাঁতের গায়ে জমে থাকা পাথরই ইহার জন্য দায়ী। পাথর দাঁতের গায়ে জমে জমে মাড়িকে দাঁতের পাশ থেকে সরিয়ে দেয়। ইহার ফলে দাঁত ফাঁকা ফাঁকা (হয়ে যায় এবং দাঁতের ভিত নষ্ট হয়। স্কেলিংয়ের পর ঐ সব ত্রম্নটি সরাসরি প্রতীয়মান হয় মাত্র। একই কারণে স্কেলিংয়ের পর দাঁত শির শির করতে পারে। তবে অচিরেই এসব অসুবিধা দূর হয়ে দাঁত মজবুত ও দীর্ঘস্থায়ী হবে।

**************************
ডাঃ শামসুল করিম মানিক
ডেন্টাল সার্জন, জেনারেল হাসপাতাল, সিরাজগঞ্জ।
দৈনিক ইত্তেফাক, ১৭ মে  ২০০৮