গরমকালে বেশি ঘাম হয় এবং শরীর ভেজা থাকে। ঘাম এবং ভেজা শরীরে ত্বকের ছত্রাক সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ছত্রাকজনিত চর্মরোগ যেমন দাউদ, ছুলি ও ক্যানডিডিয়াসিস বেশি পরিলক্ষিত হয় যা মূলত ত্বকের বাইরের অংশকে আক্রমণ করে যা স্যাঁতস্যাঁতে, নোংরা, ঘর্মাক্ত দেহে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়।

ছুলিঃ ত্বকের অক্ষতিকারক ছত্রাক প্রদাহ যা অনেকদিন যাবৎ এই রোগের লক্ষণ দেখা দিতে পারে। গ্রীষ্মকালে এই প্রদাহ বেশি দেখা যায়। শরীরের প্রায় সকল জায়গায় সাদা বা বাদামী রংয়ের গোলাকৃত বা বিভিন্ন আকৃতির এই রোগ দেখা যায়। এতে কোন রকম ব্যথা বা জ্বালাপোড়া এসব কিছুই থাকে না। বিভিন্ন রোগের সঙ্গে এ রোগের মিল রয়েছে যেমন শ্বেতী রোগ, লেপরসি, টিনিয়াকরপরিস ইত্যাদি।

দাউদঃ শরীরের যে কোন স্থানে গোলাকার চাকা দেখা দিতে পারে। তবে সাধারণত তলপেট, পেট, কোমর, নিতম্ব, পিঠ, মাথা, কুঁচকি ইত্যাদি স্থানে বেশি দেখা যায়। আক্রমণের স্থান লক্ষ্য করে একে স্থান ভিত্তিক বিভিন্ন নামে নামকরণ করা হয়।

রোগ নির্ণয়ঃ ত্বকের ফাঙ্গাস পরীক্ষার মাধ্যমে এ রোগ খুব সহজেই নিরূপণ করা সম্ভব।

ক্যানডিডিয়াসিসঃ এটি একটি ছত্রাকজনিত চর্মরোগ যাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, যেমন-শিশু, বৃদ্ধ কিংবা রোগাক্রান্ত ডায়বেটিসে আক্রান্ত, দীর্ঘদিন ধরে যারা স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ ব্যবহার করেছেন কিংবা যাদের ত্বকের খাঁজ ঘামে সব সময় ভেজা থাকে তাদেরই এই রোগটি বেশি হয়। আবার যারা সব সময় পানি নাড়াচাড়া করেন তাদের আঙুলের ফাঁকে, হাতের ভাঁজে, শিশুদের জিহ্বায়, মহিলাদের যোনিপথে এবং গর্ভবতী মহিলারা এতে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকেন। এতে ত্বকের আক্রান্ত স্থান লালচে ধরনের দেখা যায় এবং সাথে প্রচণ্ড চুলকাতে থাকে।

**************************
ডাঃ মোঃ শওকত হায়দার
দৈনিক ইত্তেফাক, ৩১ মে ২০০৮