১৬ অক্টোবর পালিত হলো বিশ্ব অ্যানেসথেসিয়া দিবস| ১৮৪৬ সালের এই দিনে বিখ্যাত ডেন্টাল সার্জন জি মর্টন আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হাসপাতালে প্রথম অ্যানেসথেসিয়ার সফল প্রয়োগ করেন| এরপর দীর্ঘ দেড় শ বছর অনেক পথ পাড়ি দিয়ে চিকিৎসাসেবায় অ্যানেসথেসিয়া গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে|
বর্তমান সময়কে শল্যচিকিৎসার স্বর্ণযুগ বলা হয়| মস্তিষ্ক, হূৎপিণ্ডসহ সব ধরনের অস্ত্রোপচার এখন বাংলাদেশেই সম্ভব| এর জন্য দরকার নিরাপদ অ্যানেসথেসিয়া| আধুনিক প্রযুক্তি ও গবেষণার কল্যাণে অ্যানেসথেসিয়া এখন এক অতি নিরাপদ প্রক্রিয়া| উন্নত বিশ্বে অ্যানেসথেসিয়ার কারণে মৃতুøর হার লাখে মাত্র একজন| কিন্তু বাংলাদেশের চিত্র ঠিক উল্টো| এ দেশে এখনো রোগীরা অজ্ঞান হলে জ্ঞান ফিরে পাওয়ার উৎকণ্ঠায় থাকে| এর কারণ পর্যাপ্ত অ্যানেসথেটিস্টের অভাব| যদিও সত্তরের দশকে যেখানে শুধু মেডিকেল কলেজভিত্তিক অ্যানেসথেটিস্ট পাওয়া যেত, সেখানে ২০০০ সালে দেশের প্রায় সব শহরসহ উপজেলা পর্যন্ত অ্যানেসথেটিস্টরা কাজ করছেন|

দেশে এখন প্রায় ৮০০ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অ্যানেসথেটিস্ট আছেন| এঁদের প্রায় ৫০০ জনই বিশেষজ্ঞের সনদপ্রাপ্ত| কিন্তু জনসংখ্যার তুলনায় এটা নিতান্তই অপ্রতুল| আমাদের প্রয়োজন প্রায় ১৫ হাজার অ্যানেসথেটিস্ট| এই লোকবল কি অ্যানেসথেসিয়া কম হওয়ার কারণ?

সাধারণভাবে বলা যায়, দেশে চিকিৎসকের সংখ্যাই অপর্যাপ্ত| তারপর রয়েছে চিকিৎসকদের মেডিসিন, সার্জারিসহ অন্যান্য রোগের বিশেষজ্ঞ হতে চাওয়ার প্রবণতা| তা ছাড়া অ্যানেসথেসিয়ার প্রশিক্ষণে পদের সংখ্যা খুবই কম| অনেক মেডিকেল কলেজেই এখনো অ্যানেসথেটিস্টের পদ প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম|

সার্জারি বিভাগে এ সংখ্যা পদের বিপরীতে ১০ জনে একজন| এ ছাড়া চিকিৎসাবিজ্ঞানে অ্যানেসথেসিয়াকে পর্দার আড়ালের বিষয় বলে ধরা হয়| রোগীদের সঙ্গে প্রত্যক্ষ যোগাযোগ কম হওয়া এর মূল কারণ| এসব কারণে চিকিৎসকেরা এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হতে কম আগ্রহী হন| সরকার বিশেষ ব্যবস্থা না নিলে এ সংকট ঘনীভূত হয়ে চিকিৎসাসেবার সম্প্রসারণে এটা বিরাট বাধা হয়ে দাঁড়াবে| অ্যানেসথেসিয়া বিষয়ে দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষণের দরকার| উন্নত বিশ্বে, যেমন যুক্তরাষ্ট্রে অ্যানেসথেসিয়ায় প্রশিক্ষণের মেয়াদ পাঁচ বছর, যুক্তরাজ্যে সাত বছর; কিন্তু আমাদের দেশে এটা এক থেকে দুই বছর| তাই বাংলাদেশে অ্যানেসথেসিয়ার প্রয়োগে মৃতুøর হারও বেশি| গত তিন মাসে পত্রপত্রিকার মাধ্যমে অ্যানেসথেসিয়ার কারণে আটজন রোগীর মৃতুøর খবর জানা গেছে| বাংলাদেশ সোসাইটি অব অ্যানেসথেসিওলজিস্টের প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা গেছে, আটটির মধ্যে সাতটি অ্যানেসথেসিয়াই প্রয়োগ করেছিলেন সংশ্লিষ্ট ক্লিনিকের ওয়ার্ডবয়, ব্রাদার বা কখনো সার্জন নিজে| আর মাত্র একটি ক্ষেত্রে অ্যানেসথেটিস্টের হাতে মৃতুøর ঘটনা ঘটে| এতে ভালোভাবেই বোঝা যায়, দেশে অ্যানেসথেটিস্টের স্বল্পতার কারণেই আনাড়িরা এ কাজে হাত দিয়ে রোগীকে মৃতুøমুখে ঠেলে দিচ্ছেন, যা দেশের স্বাস্থ্যব্যবস্থার জন্য মোটেই সুখপ্রদ নয়|

অ্যানেসথেসিয়া শুধু প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত চিকিৎসকেরাই প্রয়োগ করুন-এটাই আমাদের আহ্বান| এ আহ্বানে সংশ্লিষ্ট সবাই সাড়া দেবেন-সে প্রত্যাশা রইল|

********************************
লেখকঃ ডা· মো· খলিলুর রহমান
অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক, অ্যানেসথেসিয়া
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ২৪ অক্টোবর ২০০৭