১৮ অক্টোবর সারা বিশ্বে ‘বিশ্ব মেনোপজ দিবস’ পালিত হয়| ‘মেনোপজ’ শব্দটা নিয়ে কোনো আলাপ-আলোচনা দূরের কথা, এ রকমটা এ বয়সে স্বাভাবিক, এভাবেই আমাদের পূর্বসূরিরা মেনে নিয়েছেন| তখন ‘কুড়ি’তে বুড়ি স্বাভাবিক ঘটনা| আজকের পৃথিবীর ৬৫০ কোটি মানুষ ২০৫০ সাল নাগাদ প্রায় ৯০০ কোটিতে পৌঁছার আশঙ্কা রাখে|

পৃথিবীর ঘনবসতি দেশগুলোর অন্যতম একটি হচ্ছে বাংলাদেশ| প্রতি বর্গ কিলোমিটারে বাস করে ৮৩৪ জন| দেশের বিরাট এই জনসংখ্যার অর্ধেকই প্রায় নারী| শতকরা ৪৯ জন| সেই হিসাবে মোট মেয়ের সংখ্যা প্রায় ছয় কোটি| এই ছয় কোটি মেয়ের ৪৬ বছর ও তদূর্ধ্ব মহিলার সংখ্যা শতকরা তিন থেকে পাঁচজন হিসাবে হয় প্রায় ২৮ থেকে ৩০ লাখ| একেবারে সঠিক পরিসংখ্যান আমাদের জানা নেই| এমন অবস্থায় প্রতিদিন বাড়ছে জনসংখ্যা, সেই সঙ্গে বয়োবৃদ্ধ নারীর সংখ্যা| উন্নত দেশগুলোতে নারীর গড় আয়ু ৮০ বছর আর বাংলাদেশে গড় আয়ু হচ্ছে ৬২ বছরের ঊর্ধ্বে (২০০১ সালের তথ্য)| তবে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমে রাখা মেয়েদের বিনা বেতনে শিক্ষাব্যবস্থা ও উন্নত স্বাস্থ্য প্রকল্প, যেমন-প্রসূতি, শিশু ও কিশোরীদের পুষ্টিমান উন্নত করা সম্পর্কিত কার্যক্রমগুলো শিশু ও মাতৃমৃতুøর হার আরও কমাবে| এর ফলে নারীর গড় আয়ু ভবিষ্যতে আরও বাড়বে| বর্তমানে প্রায় ২৮ থেকে ৩০ লাখ নারীর জীবৎকাল মেনোপজাল সময়ে কাটবে জীবনের এক-তৃতীয়াংশ| জীবনের শেষভাগের এই দীর্ঘ সময়ে কষ্টকর সমস্যা নিয়ে দুর্বিষহ-জীবন যাপন করার মতো দুর্ভাগ্য আর হতে পারে না| অথচ একটু সজাগ হলে, মেনোপজ সম্বন্ধে মোটামুটি ধারণা থাকলে, কিছু শারীরিক ও মানসিক প্রস্তুতি এবং প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারলে জীবনের অবহেলিত সময়টাকেও অর্থবহ ও কর্মক্ষম করে তোলা যায়|

এ দেশের শতকরা ৮০ ভাগ মানুষের বাস গ্রামে| সহজ-সরল, লাজুক গ্রাম্যবালা নিজের কোনো গোপন কথা, বিশেষ করে মাসিক ঋতুস্রাব-সংক্রান্ত কোনো বিষয় নিয়ে সহজে কারও কাছে মুখ খুলতে চায় না| মেনোপজ আসে তাদের জীবনে প্রাকৃতিক পরিবর্তনের স্বাভাবিক নিয়মচক্রে, এর বেশি কিছু জানা বা করার নেই তাদের| সবকিছু ভেবেচিন্তে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে তাই সৃষ্টি হয়েছে বাংলাদেশ মেনোপজ সোসাইটির| এই সোসাইটির লক্ষ্য হচ্ছে অন্য সব শিক্ষার পাশাপাশি কিছু স্বাস্থ্যশিক্ষার সঙ্গে জীবনের প্রতিটি স্তরের পরিবর্তন সম্পর্কে সচেতনতা জাগিয়ে তোলা| গণমাধ্যম বা মিডিয়াকে সম্পৃক্ত করে নীতি নির্ধারণ এবং অন্যান্য প্রযোজ্য কার্যক্রম প্রণয়নকারী সংস্থাগুলোকে পৃষ্ঠপোষকের ভূমিকা নিতে উদ্বুদ্ধ করা|

মেনোপজ কীঃ ‘মেনো’ অর্থ মাস আর ‘পজ’ হচ্ছে বন্ধ হয়ে যাওয়া| প্রকৃতির স্বাভাবিক পরিবর্তনে মেয়েদের ‘ওভারি’ বা ডিম্বাশয়ে যখন মাসিকনিয়ন্ত্রক হরমোন ইস্ট্রোজেন ও প্রজেস্ট্রেরন আর তৈরি করে না, তখনই মাসিক বন্ধ হয়ে যায়| মেনোপজের সময়কাল হচ্ছে চল্লিশের মাঝামাঝি বা শেষ থেকে পঞ্চাশের কোঠায়|

কীভাবে বুঝবেন মেনোপজ হতে যাচ্ছেঃ মাসিক অনিয়মিত হতে হতে বন্ধ হয়ে যাওয়া; ছয় মাস থেকে এক বছর পর্যন্ত| গরম একটা তাপ ঢেউয়ের মতো মুখ, মাথা, কান, গলা থেকে বুক পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ে (হট ফ্লাশ); সঙ্গে যথেষ্ট ঘাম হয়, বিশেষ করে রাতে| প্রায় শতকরা ৭৫ ভাগ নারী এই কষ্টে ভোগেন|

ক্লান্তি, অবসাদ, ঘুমের অসুবিধা| মেজাজের পরিবর্তন, অল্পে রেগে ওঠা বা উত্তেজিত হওয়া| উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ, বিষণ্নতা, হতাশা, শূন্যতার ভাব| দুর্বল স্মৃতিশক্তি, মনঃসংযোগের সমস্যা| প্রস্রাবের নানা অসুবিধা| যৌন আকাঙ্ক্ষা কমে যাওয়া| এ ছাড়া হরমোন স্বল্পতার প্রতিক্রিয়া শরীরে কিছু বিলম্বিত ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারেঃ

হূদরোগ সমস্যাঃ
মেনোপজের আগে পুরুষের চেয়ে নারীদের এ সমস্যা থাকে অনেক কম| মেনোপজের পর তা হয়ে যায় সমান সমান|

অস্থিক্ষয় সমস্যাঃ ইস্ট্রোজেনের অভাব শরীরের হাড়কে করে তোলে পাতলা ও ভঙ্গুর| ৬০ বছর বয়সে প্রতি চারজনে একজন হাড় ভেঙে শয্যাশায়ী হন| ৭০ বছর বয়সে শরীরের শতকরা ৫০ ভাগ হাড় ক্ষয় হয়ে যায়| এটা অবশ্য সাদা বা ককেশিয়ানদের পরিসংখ্যান|

কীভাবে কাটাবেন এই সময়ঃ একটা সুষম, সহজপাচ্য, কম ক্যালোরি কিন্তু অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ খাবারের তালিকা বানান| এতে থাকবে প্রচুর শাকসবজি, ফলমূল, ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ দুধ বা দুগ্ধজাত খবার, ভিটামিনসমৃদ্ধ সয়াজাতীয় খাবার এবং অনেক পানীয় রাখবেন প্রতিদিনের খাবারের তালিকায়| চর্বি, মিষ্টি, ভাজাপোড়া ও গুরুপাক খাবার বাদ দিন|
চিন্তা ও চাপমুক্ত, প্রয়োজনীয় বিশ্রামসহ একটি দৈনন্দিন জীবন|
কিছু ব্যায়াম, যোগাসন, হাঁটাচলা আপনার শরীরকে রাখবে ঝরঝরে, সচল ও কর্মক্ষম| যেসব কাজ করলে মন শান্তি পায়, করতে আনন্দ হয়, তা করার চেষ্টা করুন| ব্যস্ত রাখুন নিজেকে| ত্বকের যত্ন নিন|
এইচটি হরমোন-থেরাপি বা প্রতিস্থাপন প্রয়োজনে আপনার শারীরিক কষ্টগুলো নিরাময় করবে| তবে এ জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ ও কিছু পরীক্ষার প্রয়োজন হবে| এখানে উল্লেখ্য, মেয়েদের মতো পুরুষদেরও শরীর ও মন এ ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়, যাকে বলা হয় এনড্রোপজ| মেয়েদের ক্ষেত্রে ইস্ট্রোজেনের অভাবের মতো পুরুষদের ক্ষেত্রে টেস্টোসস্টেরনের অভাবে এটা হয়ে থাকে|

************************************
লেখকঃ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব·) ডা· সুরাইয়া রহমান
উৎসঃ দৈনিক প্রথম আলো, ২৪ অক্টোবর ২০০৭