স্বাস্থ্যকথা

Article Poster

(Page 2 of 9)   « Prev  1  
2
  3  4  5  Next »

 Articles by this Author

বর্তমান বিশ্বে ডায়াবেটিস একটি অন্যতম রোগ এবং এ কারণে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে নানা প্রকার জটিলতা দেখা হয়। ডায়াবেটিসজনিত রোগ এর মধ্যে অন্যতম।
প্রায় সব বক্ষব্যাধিতেই কফ-কাশি দেখা দেয়। কিছু হৃদরোগেও কফ-কাশি লেগে থাকে। প্রত্যেকের জীবনেই কফ-কাশির কিছু না কিছু অভিজ্ঞতা থাকবেই। এখন প্রশ্ন হলো, কফ-কাশি কেন হয়?
সাধারণত কিডনি রোগীদের ক্ষেত্রে নিম্নলিখিত ৬টি কারণ বড় হয়ে দেখা দিতে পারে। ১. নেফ্রোটিক সিন্ড্রম (Nephrotic Syndrome), ২. তাৎক্ষণিক কিডনি অকেজো (Acute Renal Failure), ৩. ধীরগতিতে কিডনি অকেজো (Chronic Renal Failure), ৪. কিডনি সংযোজন রোগী (Renal Transplant Recipient), ৫. পাথরজনিত কিডনি রোগ ৬. অন্যান্য
প্রচলিত একটি ধারণা হলো, নিয়মিত ভিটামিন সি গ্রহণ করলে সর্দি-কাশি হয় না। কিন্তু সাম্প্রতিক এক গবেষণায় ধারণাটি ভুল প্রমাণিত হয়েছে। ১১,৩৫০ জন লোককে দৈনিক ২০০ মিলিগ্রাম করে ভিটামিন সি সেবন করিয়ে ৩০ বার গবেষণা চালিয়ে দেখা গেছে, ভিটামিন সি-এর কারণে তাদের সর্দি-কাশির খুব একটা উপশম হয়নি।
সম্প্রতি অ্যাজমা বা অ্যালার্জি থেকে শিশুদের যাতে রক্ষা করা যায়, সে বিষয়ে ব্যাপক গবেষণা চলছে। অ্যাজমা বা অ্যালার্জির প্রাদুর্ভাব নির্ভর করে মুলত জেনেটিক এবং পরিবেশের ওপর।
বিউটিশিয়ান ও স্কিন স্পেশালিস্টদের মধ্যে ছোটখাটো বিরোধ দীর্ঘদিনের। যদি কোন রমণী তার ত্বক পরিচর্যার জন্য বিউটি পার্লারে যান তাতে দোষের কিছু নেই। কিন্তু সম্প্রতি ‘হেলথ এন্ড নিউট্রিশন’ পত্রিকায় প্রকাশিত এক টিপসে উল্লেখ করা হয়েছে, দক্ষ বিউটিশিয়ান বা অ্যান্থোটিশিয়ান মুখের ত্বকের ডিসকালারেশনসহ কিছু কিছু সমস্যা নির্ণয় করতে পারেন।
নারীদেহে অবাঞ্ছিত লোম কিছুতেই কাম্য নয়। কারণ এতে নারীর দৈহিক সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায় এবং এটি এক অসহ্য যন্ত্রণার বিষয় হয়ে ওঠে।
শিশুরা আগামীদিনে জাতির কর্ণধার। দেশকে দক্ষ জনসম্পদে সমৃদ্ধ করতে হলে শিশুর সুষ্ঠু বৃদ্ধি ও সঠিক বিকাশ নিশ্চিত করতে হবে। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুরা সহজেই বিভিন্ন সংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে থাকে। ধনুষ্টংকার, ডিফথেরিয়া, হুপিং কাশি, যক্ষ্মা, পোলিও, হাম, হেপাটাইটিস-বি, নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া প্রভৃতি সংক্রামক ব্যাধিতে আমাদের দেশে হাজার হাজার শিশু মৃত্যুবরণ করে।
মলদ্বার বা পায়ুপথে নানাবিধ কারণে ব্যথা হয়ে থাকে। পায়ুপথের ব্যথার প্রধান কারণগুলো হচ্ছে-পায়খানার রাস্তার আশপাশে ফোড়া (পেরিএনাল এবসেস), এনালফিসার, এনাল ফিসটুলা, পেরিএনাল হিমাটোমা, ক্যাসার, কক্সিডাইনিয়া, পাইলোনিডাল সাইনাস, পেরিএনাল ওয়ার্ট, প্রোকটালজিয়া ফিউগাক্স ইত্যাদি। নিন্মে এই রোগগুলোর সংক্ষিপ্ত বর্ণনা করা হলো।
নাক বা গলার প্রদাহের কারণে উল্লেখিত জীবাণুগুলো ইউষ্টেশিয়ান টিউবের মাধ্যমে মধ্যকর্ণের সমস্ত কাঠামোতে ছড়িয়ে পড়ে। বস্তুতপক্ষে কেমন করে মধ্যকর্ণে প্রদাহ হয় তা নিম্নে আলোচনা করা হলো-

Categories