স্বাস্থ্যকথা

ব্রেস্ট ক্যান্সার

ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে বেদানা

বেদানা শুধু শরীরে রক্তের মাত্রা বাড়ায় না, তা মহিলাদের শরীরে ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধের ক্ষমতা জোগায়। সম্প্রতি এক গবেষণায় এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। আমেরিকার একটা সংস্থা এ নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করছিল। ওই সংস্থা তাদের গবেষণালব্ধ রিপোর্টে জানিয়েছে, বেদানার মধ্যে এমন কিছু তত্ত্ব মজুত রয়েছে যা ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। বেদানার মধ্যে এমন তত্ত্ব রয়েছে যা মূলত এরোমোটজ এনজাইমের প্রভাবকে নষ্ট করে দেয়। এই এরোমোটেজ এনজাইম মহিলাদের শরীরে এন্ড্রোজেন হরমোনকে এস্ট্রোজেনে হরমনে রূপান্তরিত করে। এস্ট্রোজেন হরমনের কারণেই প্রধানত ব্রেস্ট ক্যান্সার হয়। গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, বেদানার মধ্যে এরোমোটেজ রয়েছে, যা মহিলাদের শরীরে ফটোকেমিক্যালস এরোমোটেজের প্রভাব নষ্ট করে দেয়। ফলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এছাড়া বেদানার মধ্যে ১০টা প্রাকৃতিক তত্ত্ব মজুত রয়েছে, যা ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম। তাই ব্রেস্ট ক্যান্সার এড়িয়ে চলতে হলে প্রতিদিন বেদানা খান।

**************************
দৈনিক আমার দেশ, ০২ র্মাচ ২০১০।
বিশ্বজুড়ে অক্টোবর মাসটি ‘স্তন ক্যান্সার সচেতনতার মাস’ হিসেবে পালিত হয়। আমাদের বাংলাদেশেও বিভিন্ন সংস্থার আয়োজিত সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান, বিভিন্ন পোস্টার, লেখালেখি ও টিভি অনুষ্ঠানে নানাভাবে এর প্রতি সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। ক্যান্সার চিকিৎসা ও প্রতিরোধ বিষয়ে কাজ করছে, এমন সংস্থাগুলোর অনুষ্ঠানে একটি গোলাপি রিবনের ছবি ও প্রতিকৃতি দেখা যায়। এটি স্তন ক্যান্সার সচেতনতা মাসের প্রতীক। ১৯৮৫ সালে প্রথম স্তন ক্যান্সার সচেতনতা কানাডায় সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শুরু হয়। এরপর বিশ্বের প্রায় ৪০টি দেশে মাসব্যাপী এ কার্যক্রমটি ছড়িয়ে পড়ে। এর মূল ও মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল-তরুণ, বৃদ্ধ, চিকিৎসক, সেবিকা, শিক্ষক, ছাত্র, কর্মজীবীসহ সর্বস্তরে সচেতনতা সৃষ্টি।
ব্রেস্ট বা ও মেয়েদের মাতৃত্ব ও সৌন্দর্যের প্রতীক শৈশব থেকে নারীত্ব এই সময়ের মধ্যে পূর্ণতা লাভ করে। নারীর এই স্তন ক্যান্সার মরণব্যাধি বাসা বাঁধতে পারে যে কোন সময় এবং সচেতন না হলে কেড়ে নিতে পারে আপনার মহামূল্যবান প্রাণ।
সারা বিশ্বে মহিলাদের স্তন বা ব্রেষ্ট ক্যাসারের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশেও এর ব্যতিক্রম নয়। অথচ সময়মত ব্যবস্হা নিলে এ রোগের ভয়াবহ থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব। সাধারণত ৩০ বছরের আগে এই রোগ কম হয়। বেশিরভাগ রোগী বুকে চাকা নিয়ে ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়। বুকে চাকা সেই সাথে কিছু কিছু রোগী ব্যথার কথাও বলে থাকে। কখনো কখনো বুকে চাকা এবং বগলেও চাকা নিয়ে রোগী আসতে পারে। নিপল ডিসচার্জ এবং নিপল ভেতরের দিকে ঢুকে যাওয়াও এ রোগের লক্ষণ হিসেবে দেখা দিতে পারে। কিছু কিছু রোগী বুকে ফুলকপির মতো ঘা নিয়ে ডাক্তারের কাছে আসে।
(ডা· নিজাম উদ্দিন আহমেদ) অনূর্ধ্ব ৪০ বছর বয়সের ছোটখাটো শীর্ণকায়া সখিনা বেগমের বাঁ স্তনের চাকাটা যখন ছয় মাস পর দগদগে ঘায়ে পরিণত হলো, তখন বস্তিবাসীর পরামর্শে সরকারি ক্যান্সার হাসপাতালে নিয়ে গেলেন সবজি বিক্রেতা হাঁপানি রোগে আক্রান্ত স্বামী আনসার আলী। ক্যান্সারবিশেষজ্ঞ যত্ন নিয়েই দেখলেন। তবে ব্যাখ্যা করে তেমন কিছু বললেন না। সবচেয়ে কম খরচ হয় এমন তিনটি ইনজেকশন বিশেষ পদ্ধতিতে সারা দিন ধরে শিরায় দেওয়ার পরামর্শ লিখে দিলেন। ছয়বার দিতে হবে, তিন সপ্তাহ পর পর।
(ডা· পারভীন শাহিদা আখতার) ইদানীং নারীরা স্তন ক্যান্সার নিয়ে কমবেশি চিন্তিত| বিশেষ করে স্তনে কোনো সমস্যা হলে ক্যান্সার ভেবে আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন তাঁরা| সাধারণত স্তনে ব্যথা, চাকা অনুভব করা, বৃন্ত থেকে তরল বের হওয়া প্রভৃতি উপসর্গই ভীত করে তোলে মেয়েদের|
(ডা.এম এ হাসেম ভূঞা) ব্রেস্ট মা ও মেয়েদের মাতৃত্ব ও সৌন্দর্যের প্রতীক শৈশব থেকে নারীত্ব এই সময়ের মধ্যে পূর্ণতা লাভ করে। নারী এই ক্যান্সার মরণব্যাধি বাসা বাঁধতে পারে যেকোনো সময় এবং সচেতন না হলে কেড়ে নিতে পারে আপনার মহামূল্যবান প্রাণ।
(ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব·) ডা· সুরাইয়া রহমান) অক্টোবর মাসটি ‘স্তন ক্যান্সার সচেতনতার মাস’ হিসেবে পালিত হয় সারা বিশ্বেই| বাংলাদেশেও বিভিন্ন সংস্থা আয়োজিত সচেতনতার অনুষ্ঠানগুলোতে, বিভিন্ন পোস্টারে, লেখালেখিতে, টিভি অনুষ্ঠানে নানাভাবে এর সাড়া পাওয়া গেছে| ক্যান্সার চিকিৎসা ও প্রতিরোধ সংস্থাগুলোর অনুষ্ঠানে একটি গোলাপি রিবনের ছবি ও প্রতিকৃতি রয়েছে, যা স্তন ক্যান্সার সচেতনতার মাসের প্রতীক বা সিম্বল|

Categories