স্বাস্থ্যকথা

খাদ্য ও পুষ্টি

(Page 2 of 6)   « Prev  1  
2
  3  4  5  Next »

ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে বেদানা

বেদানা শুধু শরীরে রক্তের মাত্রা বাড়ায় না, তা মহিলাদের শরীরে ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধের ক্ষমতা জোগায়। সম্প্রতি এক গবেষণায় এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে। আমেরিকার একটা সংস্থা এ নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করছিল। ওই সংস্থা তাদের গবেষণালব্ধ রিপোর্টে জানিয়েছে, বেদানার মধ্যে এমন কিছু তত্ত্ব মজুত রয়েছে যা ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। বেদানার মধ্যে এমন তত্ত্ব রয়েছে যা মূলত এরোমোটজ এনজাইমের প্রভাবকে নষ্ট করে দেয়। এই এরোমোটেজ এনজাইম মহিলাদের শরীরে এন্ড্রোজেন হরমোনকে এস্ট্রোজেনে হরমনে রূপান্তরিত করে। এস্ট্রোজেন হরমনের কারণেই প্রধানত ব্রেস্ট ক্যান্সার হয়। গবেষণায় প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, বেদানার মধ্যে এরোমোটেজ রয়েছে, যা মহিলাদের শরীরে ফটোকেমিক্যালস এরোমোটেজের প্রভাব নষ্ট করে দেয়। ফলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এছাড়া বেদানার মধ্যে ১০টা প্রাকৃতিক তত্ত্ব মজুত রয়েছে, যা ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম। তাই ব্রেস্ট ক্যান্সার এড়িয়ে চলতে হলে প্রতিদিন বেদানা খান।

**************************
দৈনিক আমার দেশ, ০২ র্মাচ ২০১০।
গ্রীষ্মকালীন সময়ে বাজার জুড়ে থাকে শুধু ফল আর ফল। এ সময়কার ফলগুলো হলো তরমুজ, লিচু, আম, জাম, কাঁঠাল, আনারস, বেল, আখ, পানি ফল, নাশপাতি ইত্যাদি। কলা, পেঁপে সারা বছরই পাওয়া যায়। গরমে প্রচুর ফল খান এবং দেহে সঞ্চয় করুন ভিটামিন ও খাদ্যশক্তি।

রঙিন ফল ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়

টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে ফলের রস নয়,আ- ফল উপকারী। কারণ আ- ফলে যে আঁশ (Fiber) থাকে তা রক্তের চিনি নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এক দীর্ঘমেয়াদী সমীক্ষায় দেখা গেছে, যে সকল মহিলা দিনে তিনবার আ- ফল খেয়েছেন তাদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি ১৮% কম। অন্যদিকে যারা এক বা দু’বার স্পিনাচ (Spinace), কেল (Kale) অথবা এ ধরনের সবুজ পাতাযুক্ত সবজি খেয়েছেন তাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি ৯০% কম। সুতরাং ডায়াবেটিসের ঝঁুকি থেকে রক্ষা পেতে হলে বেশি করে ফল ও সবজি খান।

**************************
দৈনিক ইত্তেফাক, ৬ মার্চ ২০১০।
মানুষের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকা নিয়ে কতসব আয়োজন। কত বাহারি সব খাবারের মেনু। হার্ট সুস্থ রাখতে কোলেস্টেরলের মাত্রা সঠিক রাখতে কি ধরণের খাবার খেতে হবে তা অনেকেই জানেন। কিন্তু মানুষের শরীরের অন্যতম ভাইটাল অরগান ব্রেইন বা মস্তিস্কের জন্য বিশেষ কিছু খাবার দরকার, যা মস্তিস্কেককে সচল ও কর্মক্ষম রাখতে সাহায্য করে। বিজ্ঞানীদের মতে মাত্র ৩ পাউন্ড ওজনের ব্রেইন আমাদের শরীরের মোট পানকৃত পানীয়ের ২৫ ভাগ মস্তিস্ক ব্যবহার করে। আর কেবলমাত্র পরিমানমত পানি পান করে মস্তিস্কের শক্তি যেমন বাড়ানো যায় তেমনি চিন্তা শক্তিও বাড়ে আনুপাতিকভাবে। মস্তিস্কের অপর অন্যতম খাবার হচ্ছে গ্লুকোজ। যা আমরা পেয়ে থাকি শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট থেকে। তাবে মস্তিস্কের সবচেয়ে বড় শত্রু হচ্ছে স্ট্রেস বা প্রবল মানসিক চাপ।
চা নিঃশ্বাসকে সতেজ করে তোলে এবং মুখের ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে কাজ করে বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন নিউইয়র্ক পেস ইউনিভার্সিটির গবেষক মিলটন। সবুজ চা ভাইরাসের বিরুদ্ধে টুথপেস্ট ও মাউথওয়াশের কার্যকারিতা অনেক গুণ বাড়িয়ে দেয়। দেখা গেছে, সবুজ চায়ের নির্যাস ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে প্রায় ১শ’ ভাগ কার্যকর।
ভাল হাড়ের জন্য চাই প্রচুর ভিটামিন-কে, আর এরকম প্রচুর ভিটামিন-কে পাবেন সবুজ শাকসবজিতে। হার্ভার্ড-এর একদল বিজ্ঞানী দেখেন যে, হিফ জয়েন্ট ভাঙনে যে প্রচুর ভিটামিন-কে-এর প্রয়োজন তা আপনি অর্ধকাপ গাঢ় সবুজ শাকসবজিতে পাচ্ছেন। তারা গবেষণায় ৭৩,০০০ মহিলাকে ভিটামিন-কে দিয়ে এরকম একটি সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন। এসব মহিলার প্রত্যেককে ১০৯ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন-কে দেন প্রতিদিন (যা কিনা সহজেই গাঢ় সবুজ শাকসবজিতে পাওয়া যায়) এবং ১০ বছরের অধিক এই গবেষণায় লক্ষ্য করেন যে, শতকরা ৩০ ভাগেরও কম মহিলা হিপের ভাঙনে আক্রান্ত হন। মূলত ভিটামিন-কে এই কাজটি নিজে নিজে করতে পারে না। এই ভিটামিন অস্টিওক্যালসিন নামক এক ধরনের অস্থিপ্রোটিনকে রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটানোর মাধ্যমে হাড়ের গঠনে সাহায্য করে এবং হাড়কে শক্ত রাখে। যদিও এটা নিশ্চিত যে হাড়ের গঠনে ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি অত্যাবশ্যক কিন্তু ভিটামিন-কে-এর অভাবে অস্টিওক্যালসিন ঠিকমতো কাজ করতে পারে না অস্থির উপর, ফলে হাড় থাকে খুব দুর্বল। প্রতিদিন সবুজ শাকসবজি খান, যা কিনা ভিটামিন-কে-এর উত্তর উৎস-আর রক্ষা করে হাড়কে সব ধরনের ভাঙন থেকে।

দুধের এইডস নিরোধক ভূমিকা

জীবনের প্রথম পুষ্টি দুধ। আদর্শ খাদ্য হিসেবে দুধ সর্বজনস্বীকৃত। সম্প্রতি দুধের আরেকটি নতুন গুণের কথা আবিস্কৃত হয়েছে। দুধ এইডসের ভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে। শুধু এইডসের ভাইরাসই নয়- গনোরিয়া, ক্ল্যামাইডিয়া ইত্যাদি ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধেও কাজ করে। গবেষকরা বলেন, দুধে আছে ‘মনোক্যাপ্রিন’ নামের এক বিশেষ উপাদান যার জীবাণুনাশক ক্ষমতা আছে। এটি দুধের ‘ফ্যাট’ বা স্নেহধর্মী অংশে থাকে। পাওয়া যায় মায়ের দুধ ও গরুর দুধ দুটোতেই। নারকেলেও ‘মনোক্যাপ্রিন’ পাওয়া যায়। গবেষকরা মনোক্যাপ্রিনকে প্রক্রিয়াজাত করে ওষুধ বানাতে চেষ্টা করেছেন। মার্কিন গবেষক হ্যালডর থশ্যার কিছু জীবজন্তুর উপর এটি নিয়ে পরীক্ষা চালাচ্ছেন। সফল হলে আশা করা যায়, গোটা মানব জাতিই উপকৃত হবে। ************************** দৈনিক ইত্তেফাক, ৭ নভেম্বর ২০০৯।
সঠিক খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে আমরা মস্তিষ্ককে সতেজ রাখতে সক্ষম। খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তনের মাধ্যমে আপানি আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়াতে পারেন কিংবা মস্তিষ্কের বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করতে পারেন। এবার জেনে নেয়া যাক কি সেই খাদ্য উপাদানগুলো।
রোদের দেশে থাকলেই ভিটামিন ডি-এর অভাব হবে না, এমন আত্মপ্রসাদ উপভোগ করার কোনোই কারণ নেই। শুধু বাইরে রোদ থাকলেই হবে না, ওটা শরীরেও লাগাতে হবে। কথাটা উঠেছে একটা বিশেষ কারণে। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, আরব দেশীয় মহিলারা শেষ বয়সে নানা রকম হাড়ের সমস্যায় ভোগেন। কারণ খুঁজে দেখা গেছে, তাদের শরীরে ভিটামিন ডি-এর অভাব আছে। শতকরা ৬০ ভাগ মহিলারই এই অবস্থা। এমন রৌদ্রঝলসিত মরুর দেশে ভিটামিন ডি-এর অভাব। কারণ আর কিছুই নয়, অতিরিক্ত পর্দাপুশিদার কারণে তাদের গায়ে রোদের কিরণ ঠিকভাবে পড়ে না। সম্ভ্রান্ত মুসলিম নারী পর্দাপুশিদা করবেন- এটাই স্বাভাবিক।
আমাদের অনেকেরই হয়ত জানা নেই, কলা পেটফাঁপা বা স্টমাক আপসেট থেকে রক্ষা করতে পারে। যদিও কথাটি অনেকেই বিশ্বাস করতে চাইবেন না কিন্তু সাম্প্রতিককালের গবেষণায় এমনটিই দেখা গেছে। গবেষকরা বলছেন, কলা পাকস্থলী থেকে মিউকাস এবং এক ধরনের কোষের উৎপাদনকে উদ্দীপিত করে যা পাকস্থলীর ঝিল্লি এবং এসিডের মাঝে পর্দার মতো বাঁধার কাজ করে।
(Page 2 of 6)   « Prev  1  
2
  3  4  5  Next »

Categories