স্বাস্থ্যকথা

পাকস্থলী ও পরিপাকতন্ত্র

(Page 1 of 3)   
« Prev
  
1
  2  3  Next »
এক তরুণের বয়স ২২। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। বেশ কিছু দিন ধরে এক জটিল রোগে আক্রান্ত, যা তার পড়াশোনা ও জীবনযাত্রাকে ব্যাহত করছে। ছয় মাস ধরে তিনি আমাশয়ে ভুগছেন। দিনে চার-পাঁচবার টয়লেটে যেতে হয়। তলপেটে ব্যথা হয়, পায়খানার সাথে মিউকাস বা আম যায়। টয়লেট থেকে আসার পরও মনে হয় পুরোপুরি পরিষ্কার হয়নি এবং মাঝে মাঝে পায়খানার সাথে রক্ত যায়। এসব সমস্যার জন্য নিজে নিজে অনেক ওষুধ খেয়েছেন এবং অনেক ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়েছেন। অনেক রক্ত পরীক্ষা ও অন্যান্য পরীক্ষা করা হয়েছে। কিন্তু অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। ফলে তিনি খুবই চিন্তিত হয়ে পড়েন। তিনি ভাবতে থাকেন এ সমস্যার কি কোনো সমাধান নেই নাকি এটা পায়ুপথের কোনো জটিল সমস্যা, না ক্যান্সার? ওপরের বর্ণনা থেকে আপনারা অনেকেই হয়তো ভাবছেন এটা কী ধরনের রোগ? এর কি কোনো চিকিৎসা এ দেশে নেই?
আঁশ হল খাবারের সেই অংশ যা পরিপাক হয় না এবং খাদ্য গ্রহণের পর এরা অবশেষ রূপে জমা হয়ে মল তৈরী করে। আঁশ সাধারণত পুষ্টি রক্ষায় তেমন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে না। কিন্তু সুস্বাস্থ্য রক্ষায় খাদ্যে আঁশের উপস্থিতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
চিকিৎসা বিজ্ঞানের আদি থেকেই এ রোগটি চিকিৎসকদের কাছে পরিচিত। এ রোগে রোগীর পায়ুপথ মলদ্বারের বাইরে বেরিয়ে আসে। বিশেষত পায়খানা করার সময় বাইরে ঝুলে পড়ে। এরপর রোগী হাত দিয়ে এটিকে ভিতরে ঢুকিয়ে দেন। দেশের বিভিন্ন এলাকার রোগীরা এটিকে ভিন্ন ভিন্ন নামে যেমন সিলেটে বসে আলিশ, হবিগঞ্জ এলাকায় বলে কম্বল বের হয়েছে এবং বরিশালের লোকেরা বলে আইলতা বের হয়েছে।
প্রাচীনকাল থেকে চিকিৎসকরা মলদ্বারের চুলকানিকে একটি বিশেষ রোগ হিসাবে গণ্য করে আসছেন। চিকিৎসা সংক্রান্ত প্রাচীন পুস্তকেও এ সম্পর্কে বিবরণ রয়েছে। মলদ্বারে স্নায়ুতন্ত্রের প্রাচুর্যের কারণে সম্ভবত এই বিভিন্ন ধরনের উত্তেজকের প্রতি বেশি সংবেদনশীল। চিকিৎসা বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব উন্নতির যুগেও রহস্যময় এই রোগটির কারণ অনুসন্ধান ও চিকিৎসার কোনো সংক্ষিপ্ত ও সহজ-সরল সমাধান আমরা দিতে পারিনি। অল্প কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এর চিকিৎসা করা সম্ভব, তবে তা নির্ভর করে রোগীর সঠিক ইতিহাস ভেঙ্গে যায়। এর ফলে নখের আঁচড়ে সমস্যা আরও বেড়ে যায়।
পায়ুপথে বিভিন্ন রোগের মধ্যে সবচেয়ে মারাত্মক রোগ হচ্ছে ক্যান্সার। এখানে ক্যান্সার হলে বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয় যেমন­ মল ত্যাগের অভ্যাসে পরিবর্তন, খুব সকালে পায়খানার বেগ হওয়া, মল ত্যাগের পর আরো মল রয়ে গেছে এরূপ অনুভূতি হওয়া, পায়খানার সাথে রক্ত ও মিউকাস বা আম যাওয়া, কিছুদিন পাতলা পায়খানা এবং এরপর কিছুদিন কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়া, মলদ্বারে বিভিন্ন রোগ হলেও এর অল্পবিস্তর পার্থক্যসহ উপসর্গগুলো প্রায় একরকম। শারীরিক পরীক্ষা না করে শুধু রোগীর কথা শুনে সিদ্ধান্ত নিলে রোগ নির্ণয়ে ভুল হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা। তাই যন্ত্র দিয়ে মলদ্বারের ভেতর পর্যবেক্ষণ করা যেমন, প্রকটস্কপি, সিগময়ডস্কপি, কোলনস্কপি, বেরিয়াম এনেমা পরীক্ষা ইত্যাদি অত্যন্ত জরুরি। পরীক্ষার মাধ্যমে এসব রোগ আগেভাগে ধরতে পারলে চিকিৎসা সহজ ও কার্যকর হয়।
কলোস্টমি রোগীরা সাধারণ কলোস্টমি ব্যাগ পেটের ওয়ালের সাথে লাগিয়ে রাখেন যার মধ্যে মাঝে মধ্যে পায়খানা ও গ্যাস জমা হয়। এ পদ্ধতির অসুবিধা হলো দিনে তিন-চারবার এটি পরিষ্কার করতে হয়। আমাদের খাদ্যনালীর মল জমা থাকে এবং প্রাকৃতিক নিয়মে খাদ্যনালী সয়ংক্রিয়ভাবে এগুলো বের করে দেয়। ইরিগেশন পদ্ধতিতে প্রাকৃতিক নিয়মের ওপর নির্ভর করা হয় না। বিশেষ ধরনের একটি ব্যাগের ভেতর দুই লিটার সিদ্ধ পানি ভরে একটি পাইপের সাহায্যে কলোস্টমির মুখ দিয়ে খাদ্যনালীর ভেতরে ঢুকাতে হয়। এতে পায়খানা নরম হয় এবং খাদ্যনালীর বিশেষ ধরনের Peristaltic Movement-এর মাধ্যমে ভেতরের পায়খানা বেরিয়ে আসে। এই কাজটি টয়লেটের ভেতর করতে হবে। পাইপের একটি অংশ ‘ড্রেইনেজ পাইপ’ হিসেবে কাজ করে। যার মাধ্যমে পায়খানা পেটের ভেতর থেকে বেরিয়ে আসবে এবং টয়লেটে চলে যাবে।
পরিপাকতন্ত্রের শেষ অঞ্চলকে আমরা বলি বৃহদন্ত্র। রেকটাম (পায়ুপথ) ও মলদ্বার। সার্জারির যে শাখাটি এই অঙ্গগুলোর সমস্যা সমাধানে নিবেদিত তাকে বলে কলোরেকটাল সার্জারি। পায়ুপথের বিভিন্ন রোগের ভেতর ক্যান্সার হচ্ছে সবচেয়ে মারাত্মক রোগ। এই ক্যান্সারের বিভিন্ন উপসর্গের মধ্যে রয়েছে মলত্যাগের অভ্যাসের পরিবর্তন, খুব সকালে পায়খানার বেগ হওয়া, মলত্যাগের পরও মল রয়ে গেছে এরূপ অনুভূতি হওয়া, পায়খানার সাথে রক্ত ও মিউকাস (আম, শ্লেষ্মা, ল্যালপা) যাওয়া, পেটে ব্যথা, মলদ্বারে ব্যথা হওয়া ইত্যাদি।
হেদায়েত সাহেবের বয়স চল্লিশের মতো, ভালো চাকরি করেন। হঠাৎ করে কিছু দিন ধরে তার শক্ত পায়খানা হচ্ছে, পায়খানায় দীর্ঘ সময় বসে থাকার পরও মনে হচ্ছে পায়খানা ঠিক ক্লিয়ার হচ্ছে না। তাকে খুবই বিষণ্ন মনে হচ্ছে, দিন দিন কেমন যেন শুকিয়ে যাচ্ছেন, পায়খানার সাথে রক্ত যায় কি না তাকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বললেন­ খেয়াল করিনি, স্যার। তার পর তাকে পরীক্ষা করলাম, প্রোক্টোস্কোপি ও সিগময়ডোস্কোপি টেস্ট করলাম, দেখতে পেলাম তার কোলনে অর্থাৎ অন্ত্রনালীতে ক্যান্সার।
সানজানার বয়স ত্রিশ। চাকরি করেন। ফাস্টফুডের প্রতি খুব টান। হঠাৎ করে বেশ কিছু দিন যাবৎ তার শক্ত পায়খানা হচ্ছে, পায়খানায় দীর্ঘসময় বসে থাকার পরও মনে হচ্ছে পায়খানা ঠিক ক্লিয়ার হচ্ছে না, তাকে খুবই বিষণ্ন মনে হচ্ছে। দিন দিন কেমন যেন শুকিয়ে যাচ্ছে, পায়খানার সাথে রক্ত যায় কি না তাকে জিজ্ঞেস করলে সে বলল, খেয়াল করিনি, স্যার। তার পর তাকে পরীক্ষা করে দেখা গেল, প্রোক্টোস্কোপি ও সিগময়ডোস্কোপি পরীক্ষায় ধরা পড়ল তার কোলনে অর্থাৎ অন্তনালীতে ক্যান্সার।
হেদায়েত সাহেবের বয়স চল্লিশের মতো। ভালো চাকরি করেন। হঠাৎ করে বেশ কিছু দিন ধরে তার শক্ত পায়খানা হচ্ছে। পায়খানায় দীর্ঘ সময় বসে থাকার পরও মনে হচ্ছে পায়খানা ঠিক ক্লিয়ার হচ্ছে না। তাকে খুবই বিষণ্ন মনে হচ্ছে। দিন দিন কেমন যেন শুকিয়ে যাচ্ছে। পায়খানার সাথে রক্ত যায় কি না তাকে জিজ্ঞেস করলে বললেন, খেয়াল করিনি স্যার। তারপর তাকে পরীক্ষা করলাম, প্রোক্টোস্কোপি ও সিগময়ডোস্কোপি টেস্ট করলাম। তারপর দেখতে পেলাম তার কোলনে অর্থাৎ অন্ত্রনালীতে ক্যান্সার।
(Page 1 of 3)   
« Prev
  
1
  2  3  Next »

Categories