স্বাস্থ্যকথা

হৃৎযন্ত্র, রক্ত ও রক্তসংবহনতন্ত্র

(Page 2 of 5)   « Prev  1  
2
  3  4  5  Next »
বিশ্বের একনম্বর মরণব্যাধি হৃদরোগ। কোনোরকম পূর্বাভাস ছাড়াই যেকোনো সময় এটি কেড়ে নিতে পারে মানুষের জীবন। বিশ্বের মোট মৃত্যুর অর্ধেকই হয় হার্টের রোগ ও স্ট্রোকে।

কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে আদা

রান্নাবান্নার কাজে আদা ব্যবহারের কথা রাঁধুনীদের কাছে অজানা নয়। মূলত সুগন্ধযুক্ত বলে এটি মসলা হিসাবে রান্নার কাজে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু এর পাশাপাশি বর্তমানে বিভিন্ন গবেষণায় নানা রোগ প্রতিরোধে এর শক্তিশালী কার্যকর ভূমিকা প্রমাণিত হয়েছে। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের একদল গবেষক পরিচালিত এক গবেষণায় জানা গেছে, আদা রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা কার্যকরভাবে কমাতে সাহায্য করে। মূলত রক্তে অধিক মাত্রার কোলেস্টেরলের উপস্থিতি হৃদরোগ সৃষ্টির বিভিন্ন কারণের মধ্যে বিশেষ একটি। গবেষকদের মতে, আদায় রয়েছে রক্ত জমাটবিরোধী গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, যা রক্তনালীর ভিতরের রক্ত জমাটে বাধা দান করে। এ ছাড়াও আদা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ফলে হৃদরোগ প্রতিরোধ সহজ হয়। সুতরাং আদার গুণ ভোলার নয়। ************************** দৈনিক ইত্তেফাক, ১৮ এপ্রিল ২০০৯।
সব মায়েরই প্রার্থনা, রোগবালাই যেন দূরে থাকে তাঁর খোকা থেকে। অনেক মা এমনও দোয়া করেন, খোকার যত অসুখ আমার হোক, তবু যেন খোকা সুস্থ থাকে। কিন্তু হিমোফিলিয়া রোগের বেলায় মা নিজের অজান্তে রোগটি বহন করেন এবং উত্তরাধিকারসূত্রে ছেলেকে দান করেন। মা নিজে এবং তাঁর মেয়েরা থাকেন সুস্থ। এ ক্ষেত্রে অবশ্য মেয়েদের ভাগ্য সুপ্রসন্ন বলা চলে। তবে মেয়েরা যে একেবারে বিপদমুক্ত তা কিন্তু নয়। রোগ বহনকারী মেয়েরা যদি হিমোফিলিয়ায় আক্রান্ত কোনো পুরুষকে বিয়ে করে, তাহলে পরবর্তী সময়ে তার মেয়েরাও এ রোগে ভুগবে। তবে এর সংখ্যা অনেক কম। ১৭ এপ্রিল আন্তর্জাতিকভাবে পালিত হলো হিমোফিলিয়া দিবস। বাংলাদেশে হিমোফিলিয়া সোসাইটি দিবসটি পালন করল।
হার্ট এ্যাটাক নিয়ে উদ্বিগ্ন নন এমন চল্লিশোর্ধ ব্যক্তি পাওয়া যাবে না। হার্ট এ্যাটাকের প্রধান কারণসমূহের মধ্যে রয়েছে হার্ট রক্তনালীতে চর্বি বা কোলষ্টেরল জমে ব্লক তৈরি হওয়া, রক্তনালী সরু হয়ে হার্টে রক্ত চলাচলে বাধার সৃষ্টি হওয়া, অতিরিক্ত মানসিক চাপ ইত্যাদি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে হার্ট এ্যাটাকের কোন কারণ সনাক্ত করা যায় না। এমনও দেখা যায় প্রত্যহ নিয়মমাফিক ব্যায়াম করেন, চর্বি জাতীয় খাবার কম খান, লবণ খান না, প্রচুর শাক-সবজি খান, উচ্চরক্তচাপ, ডায়াবেটিস নেই এবং মানসিকভাবে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত নন, তবুও হার্ট এ্যাটাক হয়। এ ধরনের হার্ট এ্যাটাক সাধারণতঃ পূর্ব উপসর্গ ছাড়াই ঘটে। তাই নিয়মিত বছরে অন্ততঃ একবার হার্টের রুটিন চেকআপ করানো উচিত। আজকে যে বিষয়টি আলোচনায় আনতে চাই তা হচ্ছে মানসিক চাপ থেকে হার্ট এ্যাটাক।
সমস্যাঃ আমার বয়স ১৩ বছর। ওজন ৪৬ কেজি। আমি আট বছর ধরে হৃদরোগে ভুগছি। আমার হৃৎস্পন্দন সব সময় বেশি থাকে। আমি বিভিন্ন সময় ডাক্তারের পরামর্শ নিয়েছি। আমি ইকোকার্ডিওগ্রাফি করি। ডাক্তার বলেন, আমার কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু আমার এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে কেন? আমি অল্প পরিশ্রম করলেই হৃৎস্পন্দন আরও বাড়ে এবং শ্বাসকষ্ট হয়। এ অবস্থা কেন?
আট বছর বয়সী মেয়ে আছমা (কাল্পনিক নাম)। তাকে নিয়ে তার মায়ের সারাক্ষণ কান্নাকাটি। একটিই মাত্র সন্তান। রোগ সারে না। বারবার গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে যায়। বারবার বুকে কফ বসে যাওয়ার সিরাপ খায়। ঘন ঘন শ্বাস নিলে হাঁপানির ওষুধ খায়।
হার্ট স্মার্ট জীবনযাপন। তেমন কঠিন নয়। প্রতিদিন ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুণ সুস্থ হৃদপিণ্ডের জন্য। এ জন্য যে বাড়তি কাজ অনেক বাড়বে তাও নয়, খরচও তেমন বাড়বে, তাও নয়। কেমন হতে পারে হার্টস্মার্ট জীবন? বাজে পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন? প্রচন্ড না রেগে হেসে উড়িয়ে দিন। আরও আছে। রাতে আহারের পর একটু হাটাহাটি করুণ। গেমশো সে সময় না দেখে হাঁটুন। স্মার্টনেসের মানে হল খাবার শেষে পায়েস পরমান্ন বা রসগোল্লা না খেয়ে আপেল কচ্‌কচ্‌ করে চিবিয়ে খান। রাতে ১১টার খবর সোফায় বসে চিপস্‌ চিবুতে চিবুতে না দেলে হয় না? এর পরিবর্তে সোফায় আধসোয়া হয়ে জীবনসঙ্গীকে জড়িয়ে ধরে ঘরে বানানো ঘোলের শবরত বা বেলের শরবত চুমুকে চুমুকে পান করলে অনেক স্মার্ট কাজ হবে। সকালে পার্কে হাঁটতে এসে ৫ মিনিট’মত স্ট্রেংথ ট্রেনিং ব্যায়াম করা ভালো।
বিজ্ঞানীদের মতে আঁশসমৃদ্ধ পূর্ণ খাদ্যশস্য (whole grains) হৃদরোগে আক্রান্তের ঝুঁকি কমায়। হার্ভার্ড স্কুল অব পাবলিক হেলথ ৪২,৮৫০/- জন লোকের উপর গবেষণা চালিয়ে এ তথ্য উদঘাটন করেন। গবেষণায় দেখা যায় যারা দৈনিক ২৫ গ্রামের বেশি পূর্ণ খাদ্যশস্য খেয়েছেন তাদের হৃদরোগে আক্রান্তের ঝুঁকি পনেরো ভাগ কমে যায়। আবার যারা প্রতিদিন এগারো গ্রামের বেশি শস্যভূমি (bran) যাতে পর্যাপ্ত আঁশ থাকে খেয়েছেন তাদের ঝুঁকি শতকরা ত্রিশ ভাগ কমেছে।
হৃদরোগ একটি মরণব্যাধি। এর প্রকোপ দিন দিন বেড়েই চলছে। ক্রমেই বাড়ছে অকাল মৃত্যুর হার। হার্ট অ্যাটাকের কারণে কেউবা হঠাৎ মারা যান, আবার কেউ মারা যান দীর্ঘ যন্ত্রণাময় কষ্টে ভুগে। বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় এর হার অন্যান্য দেশের তুলনায় বেশি, যা আস্তে আস্তে বাড়ছে।
বুকে ব্যথা হৃদরোগের একটি বিপজ্জনক সংকেত বা উপসর্গ। সাধারণত বুকের বাম দিকে ব্যথা শুরু হয় বা বাঁ হাত, ডান হাত, উভয় হাত, দাঁত, ঘাড় বা উপর পেটে ছড়িয়ে পড়ে। অনেক সময় হৃদরোগের ব্যথাকে গ্যাষ্ট্রিকের ব্যথা ভেবে অনেকেই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন না বা বিলম্ব করেন, যা অনেক সময় মৃত্যুঝুঁকি হয়ে দাঁড়ায়। অনেক সময় রোগীরা স্হানীয় চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে সঠিক রোগ শনাক্ত হয় না।
(Page 2 of 5)   « Prev  1  
2
  3  4  5  Next »

Categories